মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা শোনালেন গান, দেখালেন খেলা

0

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: একে একে আসছে শিক্ষার্থীরা। শোনালেন দেশের গান, হামদ ও নাত। পরিবেশন করল জাতীয় সঙ্গিত। তাদের পরিবেশনায় মুগ্ধ হলো অতিথিরাও।

মঙ্গলবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) সকালে ফতুল্লায় মুজিব শতবর্ষ উদযাপনে সপ্তাহ ব্যাপী বার্ষিক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার অনুষ্ঠানে রওজাতুস সালিহীন আলিম মাদ্রাসায় এ চিত্র ছিল।

এর আগে, শুরু হয়েছে বিভিন্ন বিভাগ থেকে দৌড় প্রতিযোগিতা, মোরগ লড়াই, ক্রিকেট, চেয়ার সেটিং, বিস্কুট দৌড় প্রতিযোগিতার মতো আরো নানা প্রতিযোগিতা।

এক অভিভাবক তো বলেই ফেললেন, ‘দেখে বুঝার উপায় নেই, তাদের (মাদ্রাসা ছাত্রদের) মধ্যে সংস্কৃতিবোধ ছড়িয়ে দিতে, দেশপ্রেম ও সংস্কৃতিবান্ধব মানুষ হিসেবে গড়ে তোলার কথা প্রায়ই উচ্চারিত হয়!’

মাদ্রাসাটির অধ্যক্ষ এফ. এম. এম. আব্দুস শাকুরের সভাপতিত্বে ক্রীড়া প্রতিযোগিতার অনুষ্ঠানটিতে প্রধান অতিথি ছিলেন মাদ্রাসা গভনিং বুডির সহ-সভাপতি বীর মক্তিযোদ্ধা মমিনুল ইসলাম।

বিশেষ অতিথি ছিলেন রওজাতুস সালিহীন আলিম মাদ্রাসার রেক্টর মাওলানা মাহবুবুর রহমান।

অধ্যক্ষ আব্দুস শাকুর বলেন, আমরা চেষ্টা করি জাতীয় ভাবে উৎযাপনের মত করেই সকল অনুষ্ঠান উৎযাপন করতে। আজকের ক্রীড়া অনুষ্ঠানও একই ভাবে করার চেষ্টা করছি। তোমরা যাতে মসজিদ, মাদ্রাসায় সীমাবদ্ধ না থেকে জাতীয় পর্যায়ে সুন্দর করে দায়িত্ব পালন করতে পারো। আমরাও চেষ্টা করছি শুধু নারায়ণগঞ্জ নয়, লেখাপড়া-খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিতে তোমাদের শ্রেষ্ট করে গড়ে তোলতে।

এ ব্যাপারে বিশেষ অতিথি মাহবুবুর রহমান বলেন, প্রতি বছরই আমরা এ ধরণের বার্ষিক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। এ বছরও তারই ধারাবাহীকতায় ক্রীড়া প্রতিযোগীতা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। তবে, মুজিব শতবর্ষ উদযাপন উপলক্ষে একটু বিশেষ ভাবে। আমরা আশা করবো তোমরা এ প্রতিযোগিতাকে সুন্দর ও স্বার্থক করে তোল।

পরে প্রতিযোগিতার শুভ উদ্বোধন ঘোষণা করেন প্রধান অতিথি বীর মক্তিযোদ্ধা মমিনুল ইসলাম।

প্রসঙ্গত, ১৯৯৫ সালে অল্প কয়েকজন শিক্ষার্থী নিয়ে নারায়ণগঞ্জের ফতল্লা স্টেডিয়ামের পাশে শুরু হয় মাদ্রাসাটির পথচলা। বর্তমানে প্রায় হাজারও শিক্ষার্থী পড়া লেখা করছে প্রতিষ্ঠানটিতে। শুধু সংস্কৃতিতেই নয়, লেখা পড়াতেও জেলার অন্যতম প্রতিষ্ঠান হিসেবে নিজেদের অবস্থান ধরে রেখেছে।

0