মুক্তিযুদ্ধকে কেউ মুছে দিতে চায় আর কেউ তা বেঁচে খায় : রফিউর রাব্বি

0
লাইভ নারায়ণগঞ্জ: ২৭ মার্চ প্রথম প্রতিরোধ যুদ্ধে নিহতদের স্মরণে নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোটের আয়োজনে শ্রদ্ধাঞ্জলি ও আলাচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার (২৭ মার্চ) বিকেল ৫টায় মাসদাইর প্রতিরোধ স্মৃতিস্তম্ভের সামনে এ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

বিভিন্ন সামাজিক, রাজনৈতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে শহীদদের স্মরণে প্রতিরোধ স্মৃতিস্তম্ভে পুষ্পস্তবক অর্পন করে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করা হয়। এ সময় বক্তারা মাসদাইর প্রতিরোধ স্মৃতিস্তম্ভ আধুনিকায়ন ও শহীদদের নামফলক নির্মাণের দাবি জানান।
১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে ২৭ মার্চ পাকিস্তানী বাহিনীর বিরুদ্ধে প্রথম প্রতিরোধ গড়ে তোলা হয় নারায়ণগঞ্জের মাসদাইরে। ওইদিন পাক বাহিনীর বর্বতায় প্রাণ দেয় ৩৩ শহীদ। তারপর থেকেই এই দিনটিকে প্রথম প্রতিরোধ ও হত্যাযজ্ঞ দিবস হিসেবে পালিত হয়ে আসছে।
নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি জিয়াউল ইসলাম কাজলের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক ধীমান সাহা জুয়েলের সঞ্চালনায় এ সময় উপস্থিত ছিলেন, সাংস্কৃতিক জোটের উপদেষ্টা রফিউর রাব্বী, নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি এড. মাহাবুবুর রহমান মাসুম, কবি, সাংবাদিক হালিম আজাদ, ওয়ার্কাস পার্টির সভাপতি হাফিজুল ইসলাম, বাসদ নেতা সেলিম মাহমুদ, ন্যাপ এর সাধারণ সম্পাদক আওলাদ হোসেন, গণসংহতি আন্দোলনে সমন্বয়কারী তরিকুল সুজন, মাসদাইর শহীদ পরিবার কল্যাণ সমিতি সভাপতি মজিবুল হক প্রমুখ।
রফিউর রাব্বী বলেন, ‘স্বাধীনতার ৪৭ বছরের মধ্যে ২০ বছর আওয়ামী লীগ ক্ষমতায়। মুক্তিযোদ্ধে নেতৃত্বদানকারী এইদলটি মুক্তিযুদ্ধের চেতনা চেতনা করলেও মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস সংরক্ষণে ব্যর্থ। আজ পর্যন্ত মুক্তিযুদ্ধের তালিকাই করতে পারেনি। যে সরকারই ক্ষমতায় আসে সেই মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে নানা কিছু করে। তাই সরকারি সুবিধা লাভের জন্য মুক্তিযোদ্ধার তালিকায় ঢোকার জন্য একটি অসুস্থ্য প্রতিযোগিতা শুরু হয়। মুক্তিযোদ্ধার তালিকা না হয়ে আমাদের দেশে প্রয়োজন ছিল রাজাকারদের তালিকা করা। দেশের মুক্তিযোদ্ধা সংসদগুলো যদি এমনটা করতো তাহলে ইতিহাস এতো বিকৃত হতো না।’
তিনি আরো বলেন, ‘বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধকে কেউ ডাস্টার দিয়ে মুছে দিতে চায়। আর কেউ তা বেঁচে খেতে চায়।’
এড. মাহবুবুর রহমান মাসুম বলেন, ‘মুক্তিযোদ্ধের ধারক জনপ্রতিনিধিরা এখানে আসেন না। জেলা প্রশাসক কুজকাওয়াজ ও সংবর্ধনা নিয়ে পরে থাকেন। আমি জেলা প্রশাসকে অনুরোধ জানাবো, আগামীতে স্বাধীনতা দিবস দুইদিন ব্যাপী করার জন্য। ২৭ মার্চের এই দিনটি পালনের মাধ্যমে তারা যেন সেদিনে নিহত শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধশীল হন।’
কবি, সাংবাদিক হালিম আজাদ বলেন, ‘২৭ই মার্চের প্রতিরোধের কারণে লাখ লাখ মানুষ তাদের প্রাণ বাঁচাতে পেরেছিলেন। নারায়ণগঞ্জে যাদের সর্বপ্রথম স্মরণ করার কথা তাদেরই অবহেলা করা হচ্ছে।’
0