মেয়র আমাদের বিরুদ্ধে মামলা করে, জামায়াত-শিবিরকে নিয়ে চলে: শাহ নিজাম

0

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: শনিবার মুক্তিযোদ্ধা সড়ক উদ্বোধন করেছেন একজন। সেখানে বঙ্গবন্ধুর ছবি ছিল না, ছিল না মাননীয় প্রধানমন্ত্রীরও ছবি। উনি মুখে বলেন এক, কাজ করেন আরেক। উনি জয় বাংলা স্লোগান দেন, কাজ করেন জামায়াত-বিএনপির। তিনি বারবার পরিচয় দেন আওয়ামীলীগ করেন, আর আমাদের বিরুদ্ধে মামলা দেন। মেয়র আইভী বঙ্গবন্ধুর কর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা দিয়েছেন। জামায়াত-শিবির-বিএনপি তার বন্ধু। তিনি তাদের হয়ে প্রকাশ্যে কাজ করেন।নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাহ নিজাম বৃহস্পতিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) বিকেলে এনসিসির ৩নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের কর্মী সভায় মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভীকে উদ্দেশ্য করে এ সব কথা বলেন।

শাহ নিজাম বলেন, মনে রাখবেন, আমরা বঙ্গবন্ধুর আদর্শের রাজনীতি করি, আমরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রাজনীতি করি, আমরা শামীম ওসমানের কর্মী। দেশে যখন বিপর্যয় আশঙ্কা করেন, আমাদের নেতা শামীম ওসমান তখন এই কর্মী সম্মেলনের আহ্বান করেন। এবারও তিনি তা-ই করেছেন। আমার নেতা দলের জন্য কাজ করেন। নেতার নির্র্দেশে দলকে সুসংগঠিত করার জন্য আমরা আজ এ কর্মী সভায় এসেছি।

তিনি আরও বলেন, পূর্বেও আপনাদের সামনে এসেছিলাম ভোট চাইতে। সেদিন ভুল করেছিলাম। তাই হাত জোড় করে ক্ষমা চাইছি। আমরা নৌকার জন্য ভোট চাইবো। বিএনপি মার্কা আইভীর জন্য নয়। এই ভুল আমাদের অনেক শিক্ষা দিয়েছে। আমার নেতা শামীম ওসমান ১৩০০ কোটি টাকা এনেছেন ডিএনডি প্রজেক্টের জন্য। শামীম ওসমান উন্নয়ন করেন, আর তিনি (আইভী) বাহবা নেন। এই ভুল আর করতে দেওয়া যাবে না।

শাহ নিজাম আক্ষেপ করে বলেন, সিটি কর্পোরেশনে কোন উন্নয়ণ মূলক কাজ হয়নি। ভালো কোন হাসপাতাল নেই এখানে। হার্টের চিকিৎসার জন্য এখনো ঢাকা যেতে হয়। বঙ্গবন্ধু ও শেখ হাসিনার ছবি নিয়ে মানুষের দুয়ারে গিয়ে তিনি (আইভী) ভোট চেয়েছিলেন, শামীম ওসমানের নেতা-কর্মীরা তার জন্য ভোট চেয়েছিলেন। আমি নিজেও চেয়েছিলাম। পাশ করার পর তিনি বললেন তার বাবার পরিচয়ে নাকি পাশ করেছেন।

তিনি বলেন, যখন আমাদের নেতা শামীম ওসমান নির্দেশনা দিল, আমাদের নেত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্র চলছে, তখন আমরা নেতার নির্দেশে ঝাপিয়ে পড়লাম। আমরা কিছু পাওয়ার জন্য রাজনীতি করিনা, আমরা জনপ্রতিনিধি হওয়ার জন্য আওয়ামীলীগ করিনা, আমরা শামীম ওসমানের কর্মী। আমরা নেতার নির্দেশে এমন একজন জনপ্রতিনিধিকে সিলেকশন করবো, যে আপনাদের কথা শুনবেন, সুখ-দুঃখে পাশে থাকবেন, আপনারা মত প্রকাশ করতে পারবেন।

তিনি আরও বলেন, গত ১৮টি বছর একটি স্বপ্ন দেখেছি, এই নারায়ণগঞ্জ উন্নত হবে। ৬ থেকে ৮ বছর পৌরসভা ছিল, ওই সময় আমাদের সিদ্ধিরগঞ্জ ছিল না। তারপর গত দশটি বছর কেটে গেল। এই দশ বছরে আমরা ভেবেছিলাম উনি (আইভী) উন্নয়নের জন্য কাজ করবেন, জনগণের ভাগ্যের পরিবর্তনের জন্য কাজ করবেন, জননেত্রী শেখ হাসিনার মুখকে উজ্জল করার জন্য উনি কাজ করবেন, মানুষের অধিকার নিয়ে কাজ করবেন। কিন্তু দুঃখের বিষয়, গত দশটি বছর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র হওয়ার পরও জনগণের কোন ভাগ্যের উন্নয়ন করতে পারেন নাই। যা করেছেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী উন্নয়ন করেছেন।

শাহ নিজাম বলেন, আশরাফুল মাখলুকাত হিসাবে আল্লাহ মানুষের বিবেককে সৃষ্টি করেছেন, আমরা ভালোকে ভালো, মন্দকে মন্দ, সাদাকে সাদা, কালোকে কালো, আলোকে আলো, অন্ধকারকে অন্ধকার বলবো। আমরা যদি সত্য কথা বলতে না পারি, আমরা যদি ন্যায্য কথা বলতে না পারি, আমরা যদি মানুষের অধিকারের কথা বলতে না পারি, তাহলে বলতে পারি না আমরা আশরাফুল মাখলুকাত হিসেবে পৃথিবীতে এসেছি।

দু:খ করে তিনি আরও বলেন, আমাদের যদি বুক ব্যাথা হয়, আমরা কোথায় যাবো। নারায়ণগঞ্জে কি কোন হার্টের হাসপাতাল নিশ্চিত করা হয়েছে? করা হয়নি। আমরা যা বলবো, সত্যি কথা বলবো, নৈতিকতার কথা বলবো। আপনারা বিবেক দিয়ে তা বিবেচনা করবো।

কর্মী সভায় উপস্থিত ছিলেন, নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত শহিদ মো. বাদল, মহানগর আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি বাবু চন্দন শীল, সাধারণ সম্পাদক এড. খোকন সাহা, মহানগর যুবলীগের সভাপতি শাহাদাত হোসেন ভুঁইয়া সাজনু, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি মজিবুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক ইয়াছিন মিয়া, নারায়ণগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এহসানুল হাসান নিপু, থানা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক আমিনুল হক ভুইয়া রাজু সহ আওয়ামীলীগ ও অঙ্গসংগঠনের অন্যান্য নেতা-কর্মীরা।

0