মোহসীন-মাহবুব প্যানেল বিএনপির হলেও আমি ভোট দিতাম: শামীম ওসমান

0

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: পৃথিবীর সভ্য দেশ গুলোতে ভোট চাওয়া মানে অপমান করা। আমি আপনাদের কাছে ভোট চাইবো কেন? আপনি কি আমার চাইতে কম বুঝেন! আর আপনি তো বিজ্ঞ আইনজীবী? আপনাকে বুঝানোর কিছু নাই। আমি যদি আপনার জায়গাতে ভোটার হতাম, প্যানেলটা (মোহসীন-মাহবুব প্যানেল) যদি বিএনপিরও হতো, আর আমি যদি আওয়ামীলীগেরও হই, তারপরেও এই ভোট দিতাম। যদি আমি না দেই, তাহলে ভালো কাজকে উৎসাহিত করা হলো না।

বৃহস্পতিবার (২৩ জানুয়ারি) রাত সাড়ে ৮টার দিকে বঙ্গবন্ধু সড়কের সমবায় কমিউনিটি সেন্টারে মোহসীন-মাহবুব প্যানেলের পরিচিতি সভায় কথা গুলো বলেছেন আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী সংসদ সদস্য শামীম ওসমান।

তার ভাষ্যমতে, ‘যদি গতানুগতিক নির্বাচন হলে আগামীতে যারা নেতৃত্বে আসবে তারা খুব একটা ভালো কাজ করবে না, করতে চাইবে না। কারণ ভালো কাজ যে করেছে তাকে উৎসাহিত করতে হবে। এটা আপনার দায়িত্ব। আপনি বিজ্ঞ আইনজীবী। আপনার দায়িত্ব কিন্তু অনেক বেশি। নারায়ণগঞ্জের মানুষ আপনার বিজ্ঞতা দেখতে চায়। আর সেটা আপনারা ২৯ জানুয়ারি দেখাবেন।’

এর আগে, শামীম ওসমান বলেন, নারায়ণগঞ্জে কিছু লোক আছে এজেন্সি নিয়া নিছে। বক্তা এগারোটা কিন্তু মানুষ নয়টা। প্রেস ক্লাবের সামনে কিংবা শহীদ মিনারের সামনে খাড়ায়। যেকোন বিষয়ে সারাদিন কথা কইতেই থাকে। তারা নারায়ণগঞ্জকে অস্থিতিশীল করতে চায়। এদের আবার কিছু পত্রিকা মুখপাত্র আছে। ওই পত্রিকাগুলো দেয়ালে লাগায়। পত্রিকা আবার দেয়ালে লাগায়নি? দিপু বইসা যাওয়াকে দিপুকে কী তিরস্কার! আমি চ্যালেঞ্জ কইরা বলতাছি, যে সাংবাদিক ওই পত্রিকা চালায় সে ঠিকমতো জার্নালিস্ট বানানটাও লিখতে পারে না।

শামীম ওসমান বলেন, দিপুর সাথে কিছুটা মনমালিন্য হয়েছে, মিটে গেছে। ওটা আসলে খেলা। অনেকে গেম খেলে। কিছু লোক আছে খেলাইয়া মজা পায়। তারা খেলছে কিন্তু যখন কথা হইসে তখন খেলা শেষ হইয়া গেছে। যদি মনোনয়ন চাইতো হয়তো দুই-চাইরজন পরিবর্তন হইতো। কিন্তু মনোনয়ন না চাইলে দিবো কেমনে?

এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন সাবেক সাংসদ হোসনে আরা বেগম বাবলী, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত শহীদ বাদল, মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি চন্দন শীল, সাধারণ সম্পাদক এড. খোকন সাহা, জেলা আদলতের পিপি এড. ওয়াজেদ আলী খোকন, নারায়ণগঞ্জ চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি খালেদ হায়দার খান কাজল, সোনারগাঁ উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শামসুল ইসলাম ভূইয়া, জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি এড. হাসান ফেরদৌস জুয়েল, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সাফায়েত আলম সানি প্রমুখ। পরিচিতি সভায় জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্যানেলের সভাপতি প্রার্থী এড. মোহসীন মিয়া, সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী এড. মাহবুবুর রহমানসহ অন্যান্য প্রার্থীরাও উপস্থিত ছিলেন।

0