যানজট লেগেই থাকে নবীগঞ্জ ঘাটে

0

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: সড়কটিতে ধারণক্ষমতার তুলনায় কয়েক গুণ বেশি গাড়ি দেখা যায়। তার উপর অযান্ত্রিক যানবাহনের অবাধ বিচরণ ও যেখানে সেখানে যাত্রী উঠা নামার কারণে যানজট লেগেই থাকে চাষাঢ়া-চিটাগং রোডের নবীগঞ্জ ঘাটে। এতে মাত্রাতিরিক্ত দূর্ভোগ পোহাতে হয় ওই পথে যাতায়াতরতদের। এলাকাবাসী বলছেন, স্বমন্বিত পরিকল্পনা ছাড়া এ থেকে উত্তরণের পথ নেই।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, তল্লার নবীগঞ্জ ঘাট সংলগ্ন চাষাড়া-চিটাগাং রোডের রাস্তাটি পরিবহনের সংখ্যার তুলনায় খুবই সরু। তার উপর নবীগঞ্জ ঘাটের সামনে জটলা করে থাকছে ইজিবাইক (অটোরিক্সা), সিএনজি ও বাস। ফলে যানজট সৃষ্টি হচ্ছে।

মঙ্গলবার (২১ মে) দুপুরে এমনই যানজটে আটকে থাকা দূরন্ত পরিবহনের যাত্রী সুমন হাওয়াদার বলেন, বছরের ৩৬৫ দিনের মধ্যে ৩৬৫ দিনই যানজট সৃষ্টি হয় এখানে। প্রায়ই বাসে বসে থাকতে হয় ঘন্টার পর ঘন্টা। কিন্তু দেখার যেন কেউ নেই।

পাশেরই এক দোকানী জানান, রমজান মাসে সকাল ও সন্ধ্যার পূর্ব মুহুর্তে তুলনা মুলক বেশি যানজট সৃষ্টি হয়। তবে কম বেশি যানজট সারা দিনই লেগে থাকে।

ওই সড়কটির মাঝে জটলা হয়ে দাঁড়িয়ে থাকা এমন একজন অটো চালক আল আমিন জানান, এখানে এভাবে দাঁড়ালে কেউ কিছু বলে না। তাই দাঁড়িয়ে আছে। সকলেই যদি সাইট হয়ে গাড়ি দাঁড় করে, তাহলে আমারও দাঁড় করাতে আপত্তি নেই।

এবিষয়ে ১১ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর জমসের আলী ঝন্টু বলেন, আমি বেশ কিছু দিন যানজট নিয়ন্ত্রণ করতে ওই স্থানে দাঁড়িয়েছি। কিন্তু সরে আসলে ফের আগের অবস্থা সৃষ্টি হয়। কাজটি ট্রাফিকের। তাই সমস্যা গুলো আইনশৃঙ্খলা মিটিংয়ে তুলে ধরেছিলাম। কিন্তু কোন কাজ হয়নি।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সালে উদ্দিন লাইভ নারায়ণগঞ্জকে জানান, চাষাঢ়া টু চিটাগং রোডের নবীগঞ্জ ঘাট সংলগ্ন সড়কে কোন পুলিশ সদস্য থাকে না। তাই যানজট ওই অবস্থা হয়। বিষয়টি নিয়ে পুলিশ সুপার স্যারের সাথে কথা বলে ওই স্থানে আমাদের সদস্য দিবো।

0