যুদ্ধ ঘোষণা করলেন শামীম ওসমান

0

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: সবার ভিতরেই ভালো খারাপ আছে, আমাদের ভিতরেও ভালো খারাপ আছে। পুলিশ, মসজিদের ইমাম সাহেবদের মধ্যেও ভালো খারাপ আছে। এটাই দুনিয়ার নিয়ম। এর মধ্যেই আমাদের লড়াই করে বাঁচতে হবে। আমি আল্লাহর নামে শপদ করে বলছি, মাদক, ইপটিজিং, ভূমিদস্যু, মানুষের উপর জুলুম, সমাজে খারাপ কাজ যারা করবে, তাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করলাম।

শনিবার (২ মার্চ ) শহরের দুই নং রেল গেটস্থ জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয় সংলগ্ন মিডটাউন শপিং কমপ্লেক্সের সামনে সমাবেশে শামীম ওসমান এসব কথা বলেন।

শামীম ওসমানের ভাষ্য মতে, ‘মানুষ স্কুল কলেজ চায়, মেডিকেল কলেজ চায়। কিন্তু তার চেয়ে বেশি সাধারণ মানুষ শান্তিতে থাকতে চায়। সাধারণ মানুষ চাঁদা বাজদের হাত থেকে বাঁচতে চায়। মাদক ব্যবসায়ী, ভূমিদস্যু, অন্যায়-অত্যাচার, ইপটিজিং এর হাত থেকে বাঁচতে চায়। আমরা আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা কিছু হলেই বলি, এটা পুলিশের দায়িত্ব, এটা প্রশাসনের দায়িত্ব। আমি বলবো নো। যে দেশের মানুষ আমাদের নেত্রী শেখ হাসিনাকে পর পর ৩ বার প্রধানমন্ত্রী বানিয়েছে, আমাদেরও দরকার মানুষের পাশে গিয়ে দাঁড়ানো। জনগনকে বলতে হবে আপনি একা না, আমরা আপনার পাশে আছি। কোন অন্যায়, কোন অত্যাচার হলে আমরা তার প্রতিরোধ গড়ে তুলবো। এসব কাজে আমাদের সহযোগীতা করবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, পুলিশ র‌্যাব, বিজিবি, জেলা প্রশাসন।’

এসময় নারায়ণগঞ্জের একটি পত্রিকার কঠোর সমালোচনা করে বলেন, নারায়ণগঞ্জের কিছু পত্রিকা আছে, পত্রিকাতো মানুষ টাকা দিয়া কিনে। কিন্তু দুই একটু পত্রিকা দেখলাম, পত্রিকা ছাপাইয়া রাস্তার পারে পারে লাগায়। টাকা পায় কোথায়? অনেক সাংবাদিক আছে, অনেক সম্পাদক আছে উনাদের পত্রিকা বাহির করেত গিয়ে ঘুম হারাম হয়ে যাচ্ছে কিন্তু এদের টা হারাম হয় না। ২০১৪ সালে পুলিশের ওসির গাড়িতে হামলার চেষ্টা, আসামী গ্রেপ্তার, পরিচয় কি? সাংবাদিক। পত্রিকার নাম? দুশ্চিন্তা। আমি নাম বললে নাকি পত্রিকা চলে, তাই নাম বললাম না। এই দুশ্চিন্তা আবার অনেক চিন্তা কইরা বাহির করলো, আজকে যে মিটিং ডাকা হয়েছে? সেই মিটিংয়ে নাকি শামীম ওসমান পুলিশের বিরুদ্ধে কথা বলবে, কেন? পুলিশ কি আমাদের দুষমন। আমি প্রাউড ফিল করি নারায়ণগঞ্জের প্রশাসক বাংলাদেশের বেষ্ট জেলা প্রশাসক, আমি প্রাউড ফিল করি, কয়েক দিন ধরে এসে পরপর তিন বার শ্রেষ্ঠ এসপি হয়েছেন নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার এবং কাজ করছেন মাদক, সন্ত্রাস ও চাদাবাজীর বিরুদ্ধে। পত্রিকায় লিখছে, আজকে নাকি নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগ পুলিশ প্রশাসনের বিরুদ্ধে বক্তব্য রাখবে। কে বলছে, দুইটা গোয়েন্দা সংস্থা বলছে। আমি আইন-প্রণেতা, আমি নারায়ণগঞ্জ শৃঙ্খলা কমিটির একজন। আমি কেন প্রশাসনের বিরুদ্ধে বক্তব্য রাখবো। আমি বিষয় গুলো তুলবো আইনশৃঙ্খলা মিটিংয়ে আর জনগণের কাছে বিচার চাইবো।

সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল হাই, শ্রমিক লীগের কেন্দ্রীয় ও জেলা কমিটির সভাপতি শুক্কুর মাহমুদ, মহানগর আওয়ামী লীগের সেক্রেটারী অ্যাডভোকেট খোকন সাহা, জেলার সেক্রেটারী আবু হাসনাত শহীদ বাদল, জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সভানেত্রী প্রফেসর শিরিন বেগম, মহানগর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি চন্দন শীল, সহ সভাপতি ওয়াজেদ আলী খোকন, জেলা কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক ইব্রাহিম চেঙ্গিস, নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোহসিন মিয়া, মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক শাহ নিজাম, সাংগঠনিক সম্পাদক জাকিরুল আলম হেলাল, ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি এম সাইফউল্লাহ বাদল, সেক্রেটারী শওকত আলী, মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ইসরাত জাহান স্মৃতি, মহানগর যুবলীগের সভাপতি শাহাদাত হোসেন সাজনু, কাউন্সিলর আরিফুল হক হাসান, মহানগর স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি জুয়েল হোসেন, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সাফায়েত আলম সানি, সেক্রেটারী মিজানুর রহমান সুজন, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আজিজুর রহমান আজিজ, সেক্রেটারী আশরাফুল আলম রাফেল প্রধান, মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি হাবিবুর রহমান রিয়াদ, সাধারণ সম্পাদক হাসনাত রহমান বিন্দু প্রমুখ।

0

Leave a Reply

Please Login to comment
  Subscribe  
Notify of