যেখানে অন্ধকার, সেখানে আলোর ব্যবস্থা করবেন: অতি.পুলিশ সুপার

0

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক সার্কেল) মেহেদী ইমরান সিদ্দিকী বলেছেন, যেখানে আলো থাকে সেখানে অপরাধ ও অপরাধীরা থাকে না। মাদকের বিরুদ্ধে সকলকে একসাথে যুদ্ধ ঘোষণা করতে হবে এবং সেই যুদ্ধে জয়ী হতে হলে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। তাহলেই সমাজ থেকে মাদক দুর হবে। প্রতিটা পরিবার যদি মাদক মুক্ত থাকে তাহলে এ ওয়ার্ড মাদক মুক্ত হবে। আর ওয়ার্ড মাদকমুক্ত হলে পর্যায়ক্রমে অন্য ওয়ার্ড, জেলা, পুরো দেশ মাদকমুক্ত হবে প্রত্যাশা করি। তাই কাউন্সিলরকে অনুরোধ করবো, যেখানে অন্ধকার সেখানে আলোর ব্যবস্থা করবেন।

সদর মডেল থানা কর্তৃক আয়োজিত সন্ত্রাস, মাদক, ইভটিজিং ও অন্যান্য অপরাধ বিরোধী বিট পুলিশিং ও উঠান বৈঠকে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

সোমবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে ১৮ নং ওয়ার্ডের শীতলক্ষ্যা ফাঁড়ির আওতাধীন তোলারামের মোড়ে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

মেহেদী ইমরান বলেন, আপনারা পুরো এলাকায় সিসি ক্যামেরার ব্যবস্থা করবেন। এতে করে অপরাধীরা ভয় পাবে, তারপরও যদি অপরাধ করে তাহলে তাকে শনাক্ত করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া যাবে।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বলেন, যারা মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত তাদের কোন ছাড় নেই। তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। কেউ কোন মাদক ব্যবসায়ীদের নাম বলেন নি। তারপরও আমাদের নাম্বারে ফোন দিয়ে মাদক ব্যবসায়ী সম্পর্কে আমাদের জানাবেন, আমরা তথ্যদাতার তথ্য গোপন রাখবো। তাও যদি আমাদের বিশ্বাস না হয় তাহলে ৯৯৯ এ কল দিয়ে জানাবেন।

কাউন্সিলর কবির বলেন, যারা সেবনকারী, বিক্রেতা তারা কেউই আমার স্বজন নয়। তাদের কোন ছাড় নয়। আমরা মাদক, সন্ত্রাস, ইভটিজিং নির্মুল চাই।

তিনি আরো বলেন, টহল পুলিশের টাইম আলাদা আলাদা ও ব্যতিক্রমী করতে হবে। একই সময় টহল দিলে অপরাধীরা সে সময় আড়ালে থাকেন। পরে অপকর্মে লিপ্ত হয়। ফাঁড়ি কে শক্তিশালী করেন, আসামী, মাদকাসক্ত, অপরাধী ধরার ক্ষমতা দেন। তারা যেন থানা পুলিশের অপেক্ষায় না থেকে অপরাধীদের গ্রেফতার করতে পারে।

প্রধানমন্ত্রী উন্নয়ন করছেন, আমরা বিধবা, প্রতিবন্ধী ভাতা দিচ্ছি, নিজ অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ করছি এছাড়াও হাজারো উন্নয়ন হচ্ছে তার হাত ধরে। তাই সকলেই প্রধানমন্ত্রীর জন্য দোয়া করবেন তিনি যেন সবসময় ক্ষমতায় থাকতে পারে এবং উন্নয়নের অগ্রযাত্রাকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারেন।

এ অনুষ্ঠানে সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আসাদুজ্জামানের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোঃ কবির হোসাইন।

আরো উপস্থিত ছিলেন ঢাকা জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও ১৮নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা শরফুদ্দিন রবি, সহ-সাধারণ সম্পাদক খোরশেদ আলম সরকার, ওয়ার্ড কমিউনিটি পুলিশিং এর সভাপতি নেওয়াজ উল্লাহ হোসাইন, ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি আব্দুল খালেক, সাধারণ সম্পাদক মজিবুর রহমান, নুরুল ইসলাম ইফতে খোকন, কাউন্সিলর পুত্র নাজরে হোসাইন।

আসাদুজ্জামান বলেন, আগে আমরা নাচ-গান করতাম। খেলাধুলা করতাম এখন মাঠ-ঘাট নেই তাই বেশী বেশী অপরাধে জড়িয়ে পড়ে। তাই আপনারা নিজ নিজ সন্তানদের প্রতি খেয়াল রাখবেন তারা কার সাথে চলে ফিরে খোজ খবর রাখবেন।

বক্তারা বলেন, সবাই এক হয়ে কাধে কাধ মিলিয়ে দাড়িয়ে মাদকের বিরুদ্ধে রূখে দাড়াবো। পরিবার সচেতন হলে আমার সন্তান মাদকে আসক্ত হতে পারবে না। আমাদেরকে খেয়াল রাখতে হবে আমাদের সন্তান কোথায় যায়।

আরও উপস্থিত ছিলেন, মুসলিমনগর পঞ্চায়েত কমিটির সভাপতি মিজান উদ্দিন পাঠান, শহিদনগর পঞ্চায়েতের সদস্য হানিফুল কবির, নুরুল ইসলাম ইবনে মোবারক, আল-আমিন নগর জামে মসজিদের সভাপতি মোঃ মাসুদ, জেএমসি পঞ্চায়েত কমিটির সভাপতি নজরুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক মোবারক হোসেন, মোঃ শাকিল, সুনীল দাস প্রমুখ।

0