যে কারণে আজ থেকে খানপুর হাসপাতালের সেবা বন্ধ

0

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জসহ সারাদেশের প্রায় বেশিরভাগ এলাকা এবং জেলা লকডাউন। মহামারি আকার ধারণকৃত করোনা ভাইরাস রুপান্তুরিত হচ্ছে ভয়ঙ্কর এক রূপে। এজন্য এই রোগের চিকিৎসা এবং রোগীদের নিরাপত্তার জন্য একটি নির্ধারিত স্থান প্রয়োজন। আর সেটার জন্যই প্রস্তুত আছে নারায়ণগঞ্জের ৩’শ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতাল। নারায়ণগঞ্জ ৩শ’ শয্যা হাসপাতালটি করোনা রোগীদের চিকিৎসার জন্য ব্যবহার করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এ কারণে আজ (৯ এপ্রিল) থেকে হাসপাতালটির জরুরি বিভাগ বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। হাসপাতালে ভর্তি থাকা রোগীদের অন্য হাসপাতালে স্থানান্তর করে অন্যান্য বিভাগগুলোও বন্ধ করা হবে।

বুধবার (৮ এপ্রিল) রাতে এমনটাই জানালেন নারায়ণগঞ্জ ৩শ’ শয্যা হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক ডা. সামসুদ্দোহা সঞ্চয়। তিনি বলেন, হাসপাতালটিকে করোনা রোগী চিকিৎসার জন্য নির্বাচন করা হয়েছে। অফিসিয়াল কোন চিঠি হাতে না পেলেও এ বিষয়ে ঢাকা থেকে জানানো হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, করোনা রোগীদের চিকিৎসা করা হলে সেখানে অন্যান্য রোগী রাখা যাবে না। পুরোপুরি করোনা চিকিৎসার জন্য হাসপাতালটিকে তৈরি করতে হবে। অন্যান্য সব ধরনের চিকিৎসা বন্ধ দেওয়া হবে। তাই আগামীকাল বৃহস্পতিবার থেকে জরুরি বিভাগটি বন্ধ থাকবে। যারা ভর্তি আছেন তাদের অন্য হাসপাতালে শিফট করা হবে। পরে বাকি বিভাগগুলোও বন্ধ করে পুরো হাসপাতাল বিশুদ্ধ করে করোনা চিকিৎসার জন্য প্রস্তুত করা হবে। আগামী দশদিনের মধ্যে এটা করা সম্ভব হবে বলে মনে করি।

এর আগে, নানান সংকটেও করোনার চিকিৎসায় প্রস্তুতি গ্রহণ করছিল হাসপাতালটি। হাসপাতালে কর্মকত চিকিৎসকরা জানান, করোনা রোগীদের চিকিৎসার জন্য তাদের পূর্বের কোন অভিজ্ঞতা নেই। এছাড়া নার্স ও ওয়ার্ডবয়দেরও প্রশিক্ষনেরও কোন ব্যবস্থা করা হয়নি। এ অবস্থায় ঢাকার করোনা চিকিৎসার দায়িত্বরতদের ছাড়া মানসম্মত চিকিৎসা সেবা দেওয়া কষ্টের হয়ে দাঁড়াবে। তারপরও তার সর্বদা এই ভাইরাসের মোকাবেলায় যথাসাধ্য চিকিৎসাায় নিয়োজিত থাকবে।

এছাড়া জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের সূত্র থেকে জানা গেছে, ভিক্টোরিয়া হাসপাতালের জরুরী বিভাগের একজন ডাক্তার, একজন নার্স ও ওয়ার্ডবয় করোনা আক্রান্ত এক নারীর চিকিৎসাসেবা দিয়ে আক্রান্ত হওয়ার কারণে জরুরী বিভাগ সাময়িক বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছিল।

0