রোগীতে ভারাক্রান্ত না.গঞ্জের সরকারি হাসপাতাল

0

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: খানপুর হাসপাতালের অনুমোদিত শয্যা সংখ্যা ৩‘শ । এর বিপরীতে প্রতিদিন রোগী থাকে ২ গুণ। তার উপরে নেই পর্যাপ্ত চিকিৎসক ও সেবিকা। ফলে রোগীকে যেতে হয় ঢাকা মেডিকেল কলেজ কিংবা বেসরকারি ক্লিনিকে।

নারায়ণগঞ্জ জেলা উন্নয়ন সমন্বয় কমিটির কাছে প্রেরিত গত মে ও জুন মাসের তথ্যমতে, খানপুর হাসপাতালের বেড অকুপেন্সি রেট বা শয্যাপ্রতি রোগীর হার দ্বিগুন।

হাসপাতালটি থেকে মে ও জুন মাসে সেবা নিয়েছে ৩৩ হাজার ৭৩০ জন রোগী। এর মধ্যে বহির্বিভাগে ২৬ হাজার ৯‘শ ৭৪ জন রোগী, জরুরী বিভাগে ৬ হাজার ১০৫ রোগী ও অন্ত:বিভাগে রোগী ছিলো ৬ ‘শ ৫১ জন। সরকারি হাসপাতালটির অবকাঠামো সক্ষমতার তুলনায় রোগীর এ চাপ বেশি বলছেন সংশ্লিষ্টরা।

এবিষয়ে খানপুর হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডা. মো. আবু জাহের জানান, আমরা চেষ্টা করছি সেবার মান আরও বৃদ্ধি করতে। এ জন্য আরও লোক বলের প্রয়োজন। তাই লোকবল বৃদ্ধি করতে মন্ত্রনালয়ে একটি আবেদন পাঠিয়েছি। যদিও বিষয়টি সময় সাপেক্ষের ব্যাপার। তারপরেও আশা করছি সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে।

অন্যদিকে, রোগীর চাপ সামলাতে হিমশিম খেতে হয় নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালকেও। শয্যার তুলনায় রোগী ভর্তির হার অনেক বেশি। ১০০‘শ শয্যার এ হাসপাতালে মাসে ভর্তি থাকছে দেড় হাজার রোগী। বহি: বিভাগের আগত রোগীর সংখ্যা ২৬৭৪ জন। এ ছাড়াও সাজার-গাইনীতে ৮৬ জন, সাধারণ ডেলি ৬৮ জন, বড় ধরণের অস্ত্রোপাচার মোট ২৬৮ জন ও বড় ধরণের অস্ত্রাপাচার মোট ২৬৮ জন। পাশাপাশি ছোট অপারেশন হয়েছে ৬৪৫ টি।

এক ওয়ার্ডমাস্টার বলেন, চিকিৎসক ও নার্সরা অনেক আন্তরিক থাকার পরও প্রতিদিন বাড়তি রোগীর চাপ সামলানো কঠিন হয়ে পড়ছে।

0