র‌্যাবের অভিযানে কাউন্সিলর বাদলের সহযোগীসহ গ্রেপ্তার ৩

0

সিদ্ধিরগঞ্জ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: পণ্য বোঝাই ট্রাক, যাত্রীবাহী বাস, অটোরিক্সা, সিএনজি থামিয়ে চাঁদা আদায় কালে ৩ জন চাঁদাবাজকে হাতে নাতে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। এসময় তাদের দখল হতে সর্বমোট চাঁদাবাজির নগদ ১৪,১২০ টাকা ও চাঁদা আদায়ের রসিদ উদ্ধার করা হয়।

শনিবার (১০ আগষ্ট) দুপুরে সিদ্ধিরগঞ্জের আদমজীনগরে অবস্থিত র‌্যাব-১১’র সদর দপ্তর থেকে অপারেশন অফিসার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো: জসিম উদ্দিন চৌধুরী স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে।

গ্রেফতারকৃতরা হলো, শামীম (৩২), মনির হোসেন (৩৫) ও আলমাস মিয়া (৫০)। তারা ৭ খুনের ফাঁসির দন্ডপ্রাপ্ত আসামী নুর হোসেনের ভাতিজা কাউন্সিলর শাহজালাল বাদলের সহযোগী এবং সোনারগাঁয়ের মোগড়াপাড়া চৌরাস্তা এলাকায় পরিবহন চাঁদাবাজ।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে র‌্যাব জানায়, শুক্রবার (৯ আগষ্ট) দিবাগত রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-১১’র সিপিএসসি’র পৃথক অভিযানে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়।

সংবাদ বিজ্ঞতেতে বলা হয়, উপস্থিত স্বাক্ষী, স্থানীয় ব্যবসায়ী ও গ্রেফতারকৃতদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, একটি চাঁদাবাজ চক্র দীর্ঘদিন ধরে নারায়ণগঞ্জের চিটাগাং রোড এলাকায় রাস্তায় চলাচলরত পণ্য বোঝাই ট্রাক, যাত্রাবাহী বাস ও অটোরিক্সা, সিএনজি থামিয়ে গুরুতর আঘাতের ভয়ভীতি ও হুমকি প্রদর্শন করে জোরপূর্বক গাড়ী প্রতি ৫০ থেকে ১০০ টাকা করে চাঁদা আদায় করে আসছে। নারায়ণগঞ্জের চিটাগাং রোড এলাকায় রাস্তায় চলাচলরত অটোরিক্সা এবং সিএনজি থামিয়ে চাঁদা আদায়কালে উক্ত চাঁদাবাজ চক্রের সক্রিয় সদস্য শামীমকে হাতে-নাতে গ্রেফতার করা হয়। এই চাঁদাবাজির পৃথক আরেকটি অভিযানে সোনারগাঁ থানার মোগড়াপাড়া চৌরাস্তা এলাকায় রাস্তায় চলাচলরত যাত্রীবাহী লেগুনা ও সিএনজি থামিয়ে চাঁদা আদায়কালে মনির হোসেন ও আলমাস মিয়াকে গ্রেফতার করা হয়। তারা দীর্ঘদিন যাবৎ রাস্তায় চলাচলরত পণ্য বোঝাই ট্রাক, যাত্রীবাহী বাস, সিএনজি ও লেগুনা চালকদের নিকট থেকে জোরপূর্বক গুরুতর ভয়ভীতি দেখিয়ে দৈনিক ৫০ টাকা থেকে ১০০ টাকা পর্যন্ত অবৈধভাবে চাঁদা আদায় করে আসছে। গ্রেফতারকৃত আসামীরা পরস্পর যোগসাজশে উল্লে¬খিত যানবাহনের চালকদের নিকট হতে গুরুতর আঘাত ও ক্ষয়-ক্ষতির ভয়ভীতি দেখিয়ে বলপূর্বক চাঁদা আদায় করে আসছে। গ্রেফতারকৃত আসামীরা এরূপ অপতৎপরতা পূর্বে হতে করে আসছে মর্মে স্বীকার করে। তাদের অত্যাচারে যানবাহন চালকরা অতিষ্ঠ। চাঁদাবাজি বন্ধে র‌্যাবের অভিযান অব্যাহত থাকবে। গ্রেফতারকৃত আসামীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ৭ খুনের ফাঁসির দন্ডপ্রাপ্ত আসামী নুর হোসেনের ভাতিজা, নাসিক ৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শাহজালাল বাদলের শেল্টারে একটি চাঁদাবাজ চক্র দীর্ঘদিন ধরে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের শিমরাইল মোড় এলাকায় বাস, ট্রাক, কাভার্ডভ্যান, সিএনজি, অটোরিক্সা, ইজিবাইক, ফুটপাত এবং পরিবহন কাউন্টারে চাঁদাবাজী করে আসছে। এরআগে বাদলের কয়েকজন সহযোগীকে চাঁদাবাজী এবং অবৈধ অস্ত্র রাখার অভিযোগে গ্রেফতার করেছিল। কিন্তু অদৃশ্য কারণে এসব অপকর্মের মূল হোতা বাদল রয়ে যাচ্ছে ধরা ছোয়ার বাইরে। এমনকি তার অবৈধ আয়ের কর্মকান্ড চলছে বহাল তবিয়তে। তাই স্থাণীয়দের দাবী তদন্ত সাপেক্ষে এসব অপরাধীদের মূলহোতাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করে এ এলাকাকে চাঁদাবাজ মুক্ত করা হোক।

0