র‌্যাবের জালে ধরা ভুয়া ডিবি হুমায়ুন!

0

প্রেস বিজ্ঞপ্তি, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: রাজধানীর খিলক্ষেত থানা থেকে মো. হুমায়ুন কবির (৩৮) নামে এক ভুয়া ডিবি কর্মকর্তাকে আটক করেছে র‌্যাব-১, সিপিসি-৩ এর অভিযানিক দল। মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) সকাল সাড়ে ৯টার দিকে ভূয়া ডিবি পুলিশ পরিচয়ে চাঁদাবাজি করাকালীন হুময়ুনকে আটক করা হয়। সে গোপালগঞ্জ জেলার সদর থানার মিয়াপাড়া এলাকার মোঃ আইয়ুব আলী বেগ এর সন্তান।

মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) সিপিসি-৩ এর ভারপ্রাপ্ত কোম্পানী কমান্ডার সুজয় সরকারের প্রেরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে সবসময় বিভিন্ন ধরণের অপরাধীদের গ্রেফতারের ক্ষেত্রে অত্যন্ত অগ্রণী ভূমিকা পালন করে আসছে। র‌্যাবের সৃষ্টিকাল থেকে এ পর্যন্ত অপহরণকারী, সন্ত্রাসী, এজাহারনামীয় আসামী, ছিনতাইকারী, চাঁদাবাজ, প্রতারকচক্র, মাদক ব্যবসায়ী, চোরাকারবারীদের গ্রেফতার করে সাধারণ জনগণের মনে আস্থা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় ১৬ জুলাই র‌্যাব-১, উত্তরা, ঢাকা’র সহকারী পুলিশ সুপার সুজয় সরকারের নেতৃত্বে একটি আভিযানিক দল রাজধানীর খিলক্ষেত থানাধীন কুড়িল বিশ্বরোড রেলক্রসিং মোড় এলাকায় অভিযান চালিয়ে ভূয়া ডিবি পুলিশ পরিচয়ে চাঁদাবাজি করাকালীন মো. হুমায়ুন কবিরকে (৩৮) আটক করে।

ঘটনার সংক্ষিপ্ত বিবরণে জানা যায়, ব্যাক্তিগত কাজে রাজধানীর থানাধীন বিশ্বরোড রেলক্রসিং মোড়স্থ ময়মনসিংহ-ঢাকা রোডের দক্ষিণ পাশের যাত্রী ছাউনির সামনে গাড়ীর জন্য অপেক্ষা করছিল ভিকটিম কাজী রাসেল (২২)। কিছু সময় পর একজন অপরিচিত ব্যক্তি ভিকটিমের কাছে এসে পরিচয় জিজ্ঞেস করে এবং গন্তব্য জানতে চায়। তখন উক্ত ব্যক্তিকে ভিকটিমের পরিচয় জানতে চাওয়ায় ভিকটিম পাল্টা তার পরিচয় জিজ্ঞেস করে। এতে সে ভীষণ ক্ষুব্ধ হয়ে ভিকটিমকে উক্ত যাত্রী ছাউনির বামদিকে জোরপূর্বক নিয়ে যায়। এতে ভিকটিম কিছুটা জোরাজুরি করলে উক্ত অপরিচিত ব্যক্তি নিজেকে ডিবি পুলিশের একজন কর্মকর্তা হিসেবে পরিচয় দেয়। তখন ভিকটিম উক্ত ব্যক্তিকে বলে যে, আপনি কেন আমায় এখানে নিয়ে আসলেন? উত্তরে সে ভিকটিমকে বলে, আমি ডিবি’র অফিসার, আপনাকে চেক করবো। তখন ভিকটিম বলে, আপনি যদি ডিবি’র অফিসার হন তবে আপনার পরিচয়পত্র দেখান! তখন সে আরও ক্ষেপে যায়! এরপর ভিকটিম পুনরায় বলে- আপনি যদি ডিবি’র অফিসার হবেন তাইলে এখানে কেন নিয়ে এসে চেক করছেন, সবার সামনে ওখানেই তো চেক করতে পারতেন! অতপর সে আমাকে রাগান্বিত হয়ে বলে- শুধু এখানে কেন, টয়লেটে নিয়েও আমরা চেক করতে পারি। তার এহেন অস্বাভাবিক আচরণে ভিকটিমের কিছুটা সন্দেহ হয়। ইতোমধ্যে সে জোরপূর্বক ভিকটিমের দেহ তল্লাশী করে তার সাথে থাকা নগদ ১৩ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়। এসময় ভিকটিমের বন্ধু মোঃ আরমান দূর থেকে বিষয়টি খেয়াল করে এবং তাৎক্ষণিক উক্ত বন্ধু যাত্রী ছাউনিতে উপস্থিত জনসাধারণকে বিষয়টি অবহিত করলে তারা দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে উক্ত ডিবি অফিসার পরিচয় দেয়া ব্যক্তিকে আটক করে। এতে করে সেই ভুয়া ডিবি অফিসার হতে ১৩ হাজার টাকা ফেরত নেওয়া হয়। পরবর্তীতে র‌্যাব এর দল এসে তাকে আটক করে।

র‌্যাবের ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে ধৃত ব্যক্তি জানায়, সে কয়েক বছর আগে খুলনা পলিটেকনিক্যাল কলেজ হতে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং সম্পন্ন করে ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের অধীনে চাকুরীরত ছিলো। শৃঙ্খলা ভঙ্গ ও বিভিন্ন জালিয়াতির অপরাধে কয়েক মাস পূর্বে উক্ত চাকুরী হতে বরখাস্ত হওয়ার পর সে গাজীপুর জেলা ও রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় নিজেকে র‌্যাব, পুলিশ সহ আইন-শৃংখলা বাহিনীর বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার কর্মকর্তা পরিচয়ে সাধারণ জনগণের নিকট চাঁদাবাজী করে আসছিল বলে স্বীকার করে।

র‌্যাব আরও জানায়, গ্রেফতারকৃত আসামীর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

0