লিংক রোডে শত শত চামড়ার স্তূপ, দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে চারদিক

0

এবারের কোরবানি ঈদে অনেক বেপারীই কেঁদে কেঁদে বাড়ি ফিরেছেন গরু নিয়ে। আবার কেউ কেউ কেনা দামের থেকেও অনেক কম মূল্যে গরু বিক্রি করে বাড়ি ফিরেছেন কেঁদে। কেউ কেউ তো ব্রতই করেছেন, সামনে আর গরুর ব্যবসা তারা করবেন না।

ঈদের দিন পশু কোরবানির পর গরুর দামের মতোই চামড়ার দামও পড়ে গেছে কল্পনাতীত। সরকারি নির্ধারিত দাম তো দূরের কথা, চামড়ার পাইকাররা এক একটি গরুর চামড়া দাম ৩ থেকে ৪শ টার উপরে উঠতেই চায়নি। ফলে মৌসমুী চামড়া সংগ্রহকারীরা পড়ে যান বিপাকে। ফলে এই মূল্যে কেউ চামড়া বিক্রি করতে রাজি নন। আবার এর থেকে দাম দিয়ে চামড়া কিনতে রাজি নন পাইকারাও।

এমন পরিস্থিতিতে কেউ কেউ লবণ মেখে একদিনের মতো সংগ্রহ করা চামড়াগুলো নিজেদর কাছে রাখলেও বিপাকে পড়েন বুধবার। ফলে লোকসান মেনে নিয়ে কোথাও কোথাও নিজ উদ্যোগে সংগৃহিত চামড়া মাটির নিচে পুঁতে ফেলেছেন অনেকেই। আর কেউ কেউ চোখ এড়িয়ে ফেলে যাচ্ছেন ময়লার ভাগাড়ে। তেমনই একটি স্থান হচ্ছে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোড। এখানে কে বা কারা যেন প্রায় কয়েকশত গরুর চামড়া ফেলে রেখে গেছেন।
এদিকে সময় যত বাড়ছে ওই এলাকার বাতাসে দুর্গন্ধ চার দিকে ছড়াচ্ছে।

বুধবার (১৪ আগস্ট) দুপুরের দিকে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডের পাশে সিটি করপোরেশনের এড়িয়া পিলারের কাছের ময়লার বাগাড়ের সামনে গিয়ে দেখা গেছে চামড়ার স্তূপ।

স্থানীয়রা বলছেন, সকালে ট্রাক আর ভ্যান গাড়ি করে লোকজন এসব চামড়া এখানে ফেলে গেছেন। সময় গড়ানোর সাথে সাথে এসব চামড়া থেকে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। এতে করে এই পথে চলাচলরত মানুষ-জন সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাচ্ছে।

ঈদের আগে একই স্থানে চারটি মরা গরু ফেলে গিয়েছিলো অজ্ঞাত ব্যক্তিরা। সে নিয়ে দুদিন সমালোচনার পর তা অপসারণ করেছিলো সদর উপজেলা প্রশাসন। এবারও এই চামড়া নিয়ে শুরু হয়েছে নানা কথা। প্রশ্ন উঠেছে এবারের এই ফেলে যাওয়া চামড়া সিটি করপোরেশন নাকি উপজেলা প্রশাসন অপসারণ করবে?

0