শহরে বাস স্ট্যান্ড না থাকায় যানজট

0

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জ নাগরিক কমিটির আয়োজিত নাগরিক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ‘আমাদের নারায়ণগঞ্জকে কেমন দেখতে চাই?’ স্লোগানকে সামনে রেখে শনিবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) বিকেল ৪টায় নবাব শায়েস্তা খান সড়কস্থ সরকারী গ্রন্থাগার মিলনায়তনে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

নাগরিক কমিটির সভাপতি এড. এ বি সিদ্দিক এর সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় অংশ নেন, `আমরা নারায়ণগঞ্জবাসী’র সাধারণ সম্পাদক নাসির উদ্দিন মন্টু, সিনিয়র সহ সভাপতি রফিউর রাব্বি, সহ সভাপতি সানোয়ার তালুকদার, নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি এড. মাহবুবুর রহমান মাসুম, প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শরীফ উদ্দিন সবুজ, বাসদের জেলা সমন্বয়কারী নিখিল দাস, সিপিবির জেলা সাধারণ সম্পাদক শিবনাথ চক্রবর্তী।

মতবিনিময় সভায় জানানো হয়, বক্তাদের কাছ থেকে দাবিগুলো নির্দিষ্ট আকারে পেতেই এ সভার আয়োজন। যে দাবিগুলো গুরুত্ব সহকারে বিভিন্ন কর্তৃপক্ষের কাছে উপস্থাপন করা হবে। এবং সেগুলো বাস্তবায়নের জন্য আন্দোলন করে যাবো।

সভায় উপিস্থিত বিভিন্ন বক্তাদের আলোচনায় উঠে আসে, ‘নারায়ণগঞ্জ’ নাম আসলেই প্রথমে শীতলক্ষ্যা নদীর কথা উঠে আসে। এই শীতলক্ষ্যার পানি অস্বচ্ছ, আবার এখানে তৈরি হয়েছে লাশের ভাগাড়। শহরের যানজট নিরসনে বাস স্ট্যান্ড না থাকাটাও দায়ী। ফলে তারা বাসগুলো রাস্তায় রেখে দেয়। একজন বাসের মালিক বাসগুলো পরিচালনা করবে আর বাস রাখার জন্য জায়গা থাকবে না, তা তো হতে পারে না। নগরে আমরা প্রায়ই দেখি বাসের আড়ালে ছিনতাইকারীদের উপদ্রব। নির্বিঘ্নে চলাচল করার জন্য ফুটপাতে বসা হকারদের বিকল্প ব্যবস্থা করতে হবে। নির্দিষ্ট স্থানে হকারদের একটি বাজার গড়ে উঠার দাবিও উঠে। চাষাঢ়া চত্বর, ডায়মন্ড হল চত্বরে ওভারব্রীজ নির্মাণের জন্য দাবি উঠে।

শিক্ষার বিষয় উল্লেখ করে বক্তরা বলেন, নারায়ণগঞ্জ শহরকে চেনা হয় বাণিজ্য দিয়ে, কিন্তু এখানে যে শিক্ষা ও সংস্কৃতির শহর ছিলো তা বর্তমানে নেই। শুধু টাকা কামাই করলে চলবে না, পাশাপাশি আমাদের শিক্ষা, দীক্ষা ও সংস্কৃতির দিক দিয়ে এগিয়ে যেতে হবে। দেশের অন্যান্য জেলার তুলনায় নারায়ণগঞ্জের মেয়েরা উদ্যোক্তা হিসেবে সেভাবে এগিয়ে যায়নি। নারায়ণগঞ্জে মেয়েরা যেন অবাধে চলাফেরা করতে পারে এবং ব্যবসা পরিচালনার জন্য উপযুক্ত পরিবেশ নির্মাণ করতে হবে। আমাদের নারায়ণগঞ্জে কোন বিশ্ববিদ্যালয় ও সরকারী মেডিকেল কলেজ নেই। আসন্ন নির্বাচনকে সামনে রেখে অনেকে বলছে উদ্যোগ নেওয়া হবে। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে জাতীয় সংসদে এ বিষয়ে আদৌ কি কোন দাবি উত্থাপন করা হয়েছে। আমরা নারায়ণগঞ্জ জেলা ধনী জেলা হিসেবে পরিচিত। কিন্তু আমাদের যারা ধনী হয়েছেন বা আছেন তারা তাদের দায়িত্ব ভুলে গেছে। আমাদের নারায়ণগঞ্জকে মাদকমুক্ত করতে হবে। এখানে মাদক দ্রব্য কিভাবে আসে তা খতিয়ে দেখতে হবে। তাহলে মাদকমুক্ত নারায়ণগঞ্জ নির্মাণ করা সম্ভব।

ওই সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন, নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি ভাবনী শংকর রায়, জেলা মহিলা পরিষদের সভাপতি লক্ষী চক্রবর্তী, জাহিদুল হক দিপু, হাসমত উল্লাহ, মুক্তিযোদ্ধা এহসান কবির রমজান,  এড. আহসানুল করিম চৌধুরী বাবু,  মুক্তিযোদ্ধা ফরিদা আক্তার, গণসংহতি আন্দোলনের সমন্বয়কারী তরিকুল সুজন, নারী সংহতির পপি রাণী সরকার প্রমুখ।

0