শাহ্ আলম হত্যা: স্ত্রী-শ্বশুর ও ২ শ্যালিকা রিমান্ডে

0

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: ১৫ জুলাই স্ত্রীর সাথে শ্বশুর বাড়ি আড়াইহাজারের নৈকাহন গিয়েছিলেন শাহ্ আলম। জামাইকে আপ্যায়নও করেছে বেশ। আসার আগে আরও এক রাত থেকে যেতে জোড় করছিলেন শ্যালিকা। তখনও বুঝতে পারেনি- এ রাতই হবে শাহ্ আলমের শেষ রাত। ভোরের সুর্য আলো দিয়েছে ঠিকই, শুধু চোখ মেলেনি শাহ আলম। কী হয়েছিল সেই রাতে, এখনও রহস্য যায়নি জানা। তবে, শাহ আলমের পরিবারের বরাত দিয়ে পুলিশ বলছে, অল্প কিছু টাকার জন্যই খুন হয়েছে শাহ্ আলম।

এ ঘটনায় আড়াইহাজার থানা পুলিশ গত ৬ আগষ্ট বিকালে নরসিংদীর শেখেরচর এলাকা থেকে এলাকা থেকে স্ত্রী, শ্বশুর, ২ শ্যালিকাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

পরে ৭ আগষ্ট দুপুরে সিনিয়র জুডিশিলায় ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে ৫ দিনের রিমান্ড চেয়ে উঠালে আদালত ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

রিমান্ড প্রাপ্তরা হলেন- নিহতের স্ত্রী সুমি আক্তার (২০), শ্বশুর আলাউদ্দীন (৫০), শ্যালিকা শেলিনা বেগম (২০) ও শিরিনা আক্তার (১৮)। তারা সবাই উপজেলার উপজেলার চৌথার আখড়পাড়া গ্রামের বাসিন্দা।

কোর্ট পুলিশের পরিদর্শক আব্দুল হাই বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, স্ত্রী সুমিসহ আরও তিন জনের বিরুদ্ধে ৫ দিনের রিমান্ডের আবেদন করা হয়েছিল। আদালত শুনানি শেষে ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

মামলা সূত্রে জানা যায়, স্থানীয় ব্রাহ্মনন্দী ইউপির মারুয়াদী এলাকার মৃত আম্বর আলীর ছেলে নিহত শাহ্ আলম রাজমিস্ত্রির কাজ করতেন। ৪ বছর আগে তার সঙ্গে সুমি আক্তারের বিয়ে হয়। তাদের দাম্পত্য জীবনে দুই সন্তান রয়েছে। শাহ্ আলমের বিদেশ যাওয়ার খরচ বাবদ ৩ লাখ ৬০ হাজার টাকা তার শ্বশুরবাড়িতে রাখা ছিল। জমাকৃত ওই টাকা ফেরত চাইলে শ্বশুরবাড়ির লোকজনের সঙ্গে তার দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হয়। গত ১৫ জুলাই বিকেলে সে শ্বশুরবাড়িতে যায়। পরদিন সকালে একটি একটি পুকুর পাড়ে তার লাশ পড়ে থাকা অবস্থায় উদ্ধার করে পুলিশ। পরে নিহতের মা মমতাজ বেগম বাদী হয়ে নিহতের শ্বশুরবাড়ির পরিবারের ৬ জনের নাম উল্লেখ করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

0