শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সংস্কৃতি-খেলাধুলার প্রচলন কমে গেছে: প্রধানমন্ত্রীর উপ প্রেস সচিব

0

সিটি করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ:
আমাদের নতুন প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় গড়ে তুলতে হবে। তিনি বলেন বাঙ্গালী সংস্কৃতি অত্যন্ত সমৃদ্ধ। এ সংস্কৃতিকে আমাদেরকে লালন করতে হলে চর্চা করতে হবে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলোতে এখন সংস্কৃতি এবং খেলাধুলার প্রচলন কমে গেছে। এর প্রচলন বাড়ানোর জন্য শিক্ষকদের অগ্রনী ভুমিকা নিতে হবে।

শনিবার বিকেলে দেওভোগ বিদ্যানিকেতন হাই স্কুলে বার্ষিক সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ এবং শরৎ উৎসবে প্রধানমন্ত্রীর উপ প্রেস সচিব জাহিদ হাসান তুষার একথা বলেন। বিদ্যানিকেতন পরিচালনা পরিষদের সভাপতি ও দৈনিক সংবাদের ব্যবস্তাপনা সম্পাদক কাশেম হুমায়ুনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন নারায়নগঞ্জের প্রথম পুলিশ সুপার এবং সাবেক সচিব বীর মুক্তিযোদ্ধা মমিনউল্লাহ পাটওয়ারী (বীর প্রতিক), আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক সাজ্জাদ সাকিব বাদশা, বিদ্যানিকেত ট্রাষ্টের সদস্য সচিব দেলোয়ার হোসেন চুন্নু, সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান ও নারায়নগঞ্জ জেলা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আবদুস সালাম, ট্রাষ্টি সদস্য কাশেম জামাল, এডভোকেট নবী হোসেন, আরফাদুর রহমান বান্টি, মোয়াজ্জেম হোসেন সোহেল ও প্রধান শিক্ষক উত্তম কুমার সাহা।

প্রধানমন্ত্রীর উপ প্রেস সচিব জাহিদ হাসান তুষার আরও বলেন, বিদ্যানিকেতন সংস্কৃতি এবং খেলাধুলার ধারা অব্যাহত রেখেছে। বর্তমান প্রজন্মের মধ্য থেকেই আগামী দিনের রাষ্ট্রনায়ক সহ দেশ পরিচালনার সুনাগরিক গড়ে উঠবে। তাই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে শুধুমাত্র ছাত্র তৈরী করলে চলবে না। তাদের সত্যিকারের মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। যাতে আমরা সুনাগরিক হিসেবে বর্তমান প্রজন্মকে রেখে যেতে পারি।

একই অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে নারায়নগঞ্জের প্রথম পুলিশ সুপার এবং সাবেক সচিব বীর মুক্তিযোদ্ধা মমিনউল্লাহ পাটওয়ারী (বীর প্রতিক) বলেন, আমাদের শিক্ষার্থীদের জ্ঞান অর্জন করে সত্যিকারের মানুষ হিসেবে গড়ে উঠতে হবে। আমাদের মুক্তিযুদ্ধ যেমন প্রত্যেকের কাছে অহংকার তেমনি ভাবে এ দেশটা আমাদের সকলকে গড়ে তুলতে হবে । এজন্য সোনার বাংলায় সোনার মানুষ চাই। আর সোনার মানুষ গড়ে তুলতে হলে শিশুদের সৎ আদর্শবান নাগরিক হিসেবে তৈরী করতে হবে। তিনি বলেন, এজন্য আমাদের মধ্যে জাতীয়তাবোধ জাগ্রত করতে হবে। শিশু কিশোরদের মধ্যে সে চেতনার সৃষ্টি করতে হবে।

এর আগে বিদ্যানিকেতনের শিক্ষার্থীরা শরৎতের গান, কবিতা আবৃত্তি ও নৃত্য পরিবেশন করে। পরে সপ্তাহব্যাপী সাংস্কৃতিক উৎসবে আয়োজিত বিভিন্ন সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। সাংস্কৃতিক উৎসবে ২৮টি শ্রেনী ও শাখার শিক্ষার্থীরা ২৮টি দেয়াল পত্রিকা প্রকাশ করে স্কুলের হল রুমে প্রদর্শনীর আয়োজন করে। এদিকে অনুষ্ঠানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ৭৩তম জন্মদিন উপলক্ষে কেক কাটা হয়।

0