সরকারি তোলারাম কলেজের বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে শামীম ওসমান

0

##মুক্ত পাখির মত উড়তে চাই বলে মন্ত্রীত্ব নেই নি

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: ‘তোমরা ঘুমিয়ে গেছ। এখনকার শিক্ষার্থীরা প্রতিবাদ করতে জানে না। শিক্ষার্থীরা ফার্মের মুরগির মত হয়ে গেছে। তারা প্রতিবাদ করতে পারেনা। যেখানে অন্যায়-অবিচার দেখবে সেখানেই প্রতিবাদ গড়ে তুলবে। তোমরা কাকে ভয় পাও-প্রশাসনকে? পুলিশ-প্রশাসন কি করবে? তারা না হয় এক্টু লাঠি পেটা করবে। যদিও এখন প্রশাসন নিজেকে সবচেয়ে বেশি শক্তিশালি মনে করে

রোববার (১৭ ফেব্রুয়ারি) সাড়ে ১২ টার সময় নারায়ণগঞ্জ সরকারি তোলারাম কলেজ মাঠে এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ শামীম ওসমান এসব কথা বলেন। এইচ এস সি পরীক্ষার্থীদের বিদায় সংবর্ধনা উপলক্ষে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন সরকারি তোলারাম কলেজের অধ্যক্ষ বেলা রানী সিংহ।

শামীম ওসমান বলেন, আমরা যখন ছাত্র ছিলাম তখন ৭ জন ছাত্র মিলে ১৯ জন মন্ত্রীর গাড়ি অবরোধ করে রাখি। কাউকে ঢুকতে দেই নি। কারণ আমরা ন্যায়ের পক্ষে ছিলাম। অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করেছিলাম। নারায়ণগঞ্জে কোন ঘুষ অন্যায় থাকতে পারবেনা। ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে বড় বড় আন্দোলন এই জেলা থেকেই শুরু হয়েছে। নারায়ণগঞ্জকে সুন্দর করে গড়ে তোলার জন্য শিক্ষার্থীদের সহযোগিতা চাই। এখানে উন্নত মানের মেডিকেল কলেজ এবং বিশবিদ্যালয় করব।

তিনি বলেন, প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাকে ২ বার মন্ত্রী হতে বলেছিল, কিন্তু আমি হয়নি। আমি মুক্ত পাখির মত উড়তে চাই। মন্ত্রী হলে সবার সাথে মিশতে পারবনা। তাই মন্ত্রীত্ব নেই নি। আমি ছাত্র-ছাত্রীদের সাথে মিশে এক সাথে কাজ করতে চাই।

শামীম ওসমান আরো বলেন, আমি যখন তোলারাম কলেজের ছাত্র ছিলাম তখন ৯শ টাকার জন্য এইচএসসি পরীক্ষার ফর্ম ফিলাপ করতে পারেনি। অথচ আমি বাংলাদেশের ধনী পরিবারের একজন ছেলে ছিলাম। আমাদের বাড়ি নিলাম দিয়ে দিল। আমরা তখন একবেলা খেলে আরেক বেলা না খেয়ে থাকতাম। চক্রবর্তী স্যার নিজে আমার ফর্ম ফিলাপের টাকা দেন এবং আমি পরীক্ষা দেই।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সরকারি তোলারাম কলেজের উপাধ্যক্ষ প্রফেসর শাহ মো. আমিনুল ইসলাম, শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক জীবন কৃষ্ণ মোদক। আরো উপস্থিত ছিলেন, নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি চন্দন শীল, জেলা মহিলালীগের সভানেত্রী ও সরকারি তোলারাম কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ শিরিন বেগম, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এহসানুল হাসান নিপু, সাফায়েত আলম সানী, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আজিজুর রহমান ভূইয়া, মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি হাবিবুর রহমান রিয়াদ প্রমুখ।

0