সামসুজ্জোহার একান্ত আস্থাভাজন হাসান আলী প্রধানের ১১তম মৃত্যুবার্ষিকী

0

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: গ্রামে গ্রামে যুবক খুঁজতেন। বুঝাতেন দেশের ভয়ঙ্কর পরিস্থিতি! এরপর উৎসাহ দিতেন। ভারতে নিয়ে যোগ দেওয়াতেন মুক্তি বাহিনীতে। কোথায় থাকতে হবে এবং কে কোথায় ট্রেনিং নিবে? সেই বিষয় গুলোও দেখতেন।

এভাবেই ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন সিদ্ধিরগঞ্জের গোদনাইল বাগপাড়া বার্মাইস্টার্ন এলাকার মো: হাসান আলী।

একই সাথে ২নং সেক্টরের আগরতলা মেলাঘর ক্যাম্পের মূল দায়িত্বে থাকা মরহুম একেএম সামসুজ্জোহা সাহেবের একান্ত সহকারী ছিলেন তিনি। ২নং সেক্টরে যাচাই বাছাই করে অনুমতি দিতেন, কার কোথায় থাকতে হবে এবং কে কোথায় ট্রেনিং নিবে।

তৎকালীন গণপরিষদের সদস্য আফজাল সাহেব এমপির লেখা ‘দিন গুলি মোর বই’তে মো: হাসান আলী প্রধানের মহান মুক্তিযুদ্ধে বিশেষ ভূমিকার কথা লিখে গেছেন।

২৮ ফেব্রুয়ারি সেই বীর মুক্তিযোদ্ধা মো: হাসান আলী প্রধানের ১১তম মৃত্যুবার্ষিকী। গত ২০১০ সালের এই দিনে নিজ বাসভবন সিদ্ধিরগঞ্জ থানা গোদনাইল বাগপাড়া বার্মাইস্টার্ন এলাকার প্রধান বাড়ীতে মৃত্যু বরণ করেন।

মো: হাসান আলী প্রধানের পিতা মরহুম চাঁন মিয়া প্রধানও ১৯৫৪ সালে যুক্তফ্রন্ট নির্বাচনকালীন ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ (বর্তমান সিদ্ধিরগঞ্জ থানা) সভাপতি ছিলেন। পিতার পথ অনুসরণ করে মো: হাসান আলী প্রধানও বঙ্গবন্ধুর আদর্শের গড়া আওয়ামীলীগের সাথে আমৃত্যু সম্পৃক্ততা ছিলেন।

১৯৬৮ সাল থেকে ১৯৭৫ সাল পর্যন্ত গোদনাইল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ এর সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন। পরে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামীলীগ প্রতিষ্ঠা করেন। প্রথম সাংগঠনিক কমিটির যুগ্ম আহবায়কের দায়িত্ব পালন করেন, পরে সাংগঠনিক সম্পাদক হন। এছাড়াও সিদ্ধিরগঞ্জ থানা রেডক্রস সোসাইটির চেয়ারম্যান ছিলেন। মৃত্যুর পূর্ব মূহুর্ত পর্যন্ত এলাকার উন্নয়নের কাজে (মসজিদ কবরস্থান উন্নয়নে) তাঁর অনেক অবদান রয়েছে।

বীর মুক্তিযোদ্ধা মো: হাসান আলী প্রধানের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে তার নিজ বাসভবনে মিলাদ কোরআন খতম ও দোয়ার আয়োজন করা হয়েছে। তাঁর পরিবারের পক্ষ থেকে সকলের কাছে দোয়া চেয়েছেন, আল্লাহ্ যেন তাকে জান্নাতবাসী করে।

0