সিদ্ধিরগঞ্জে বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সভা অনুষ্ঠিত

0

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: করোনা পরিস্থিতিতে করনীয় নিয়ে সিদ্ধিরগঞ্জে বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিচালক ঐক্য পরিষদের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৩০ এপ্রিল) বেলা ১১টায় আদমজীর কদমতলী দশতলা এলাকায় এই মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, সাংবাদিক ও মানবাধিকারকর্মী বিল্লাল হোসেন রবিন। সিদ্ধিরগঞ্জ বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিচালক ঐক্য পরিষদের সভাপতি মজিবুর রহমানের সভাপতিত্বে ও শাহিনূর আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের পরিচালক মো. আরিফ হোসেন ঢালীর সঞ্চালনায় সিদ্ধিরগঞ্জ বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিচালক ঐক্য পরিষদের সদস্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, জ্ঞানের আলো আইডিয়াল স্কুলের পরিচালক মো. সাইফুল ইসলাম খন্দকার, বর্ণমালা কিন্ডারগার্টেনের পরিচালক মো. আনিসুজ্জামান, আদমজী এ্যাকটিভ হাই স্কুলের পরিচালক মো. জাবের হোসেন, এডুকেশন একাডেমির পরিচালক মো. সোহেল, বর্ণমালা একাডেমির পরিচালক. মো. খোরশেদ আলম, জিনিয়াস প্রি-ক্যাডেট ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের পরিচালক ইঞ্জিনিয়ার মো. জাহিদ ইসলাম, আদমজী মডেল হাই স্কুলের পরিচালক এ্যাডভোটেক গোলজার খান, সানরাইজ মডেল হাই স্কুলের শিক্ষক মো. আব্দুল জলিল, রসুলবাগ আইডিয়াল স্কুলের পরিচালক নাইমা ইয়াসমিন, মাদার কেয়ার প্রি-ক্যাডেট স্কুলের পচিালক মো. জয়নাল আবেদীন, এ টু জেড ইসলামিক একাডেমির পরিচালক মো. ইমরান হোসেন, হলি চাইল্ড জুনিয়র স্কুলের পরিচালক নাছের বিন হানিফ, রমিজ উদ্দিন ভূইয়া মডেল স্কুলের পরিচালক মো. জামান মিয়া, আদমজীনগর আদর্শ একাডেমির পরিচালক মো. মানুন খান, হাজী আবেদ আলী আইডিয়াল স্কুলের পরিচালক মো. মোশাররফ হোসেন, এ্যাকটিভ মডেল স্কুলের পরিচালক মো. শাহবুব আলম সুমন, বিজয় আইডিয়াল হাই স্কুলের পরিচালক এস. এম বিজয়।

মতবিনিময় সভায় বক্তারা বলেন, মরণঘাতি করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধ ও সংকট মোকাবিলায় ১৭ মার্চ থেকে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করেছেন সরকার। এরমধ্যে ২৭ এপ্রিল মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, স্কুল, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এখন একটাও খুলবে না। অন্তত সেপ্টেম্বর পর্যন্ত স্কুল-কলেজ, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সবই বন্ধ থাকবে যদি করোনা ভাইরাসের প্রার্দুভাব অব্যাহত থাকে। যখন এটা থামবে তখন আমরা খুলবো। এমন পরিস্থিতিতে চরম উদ্বেগ-উৎকন্ঠা দেখা দিয়েছে সারাদেশের ন্যায় সিদ্ধিরগঞ্জের বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বিশেষ করে কিন্ডার গার্টেন ও বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিচালকদের মধ্যে। গত দেড় মাস বন্ধ থাকায় এমনিতেই আর্থিক সংকটে পড়েছেন তারা। তার উপর স্কুল ভবনের ভাড়া, শিক্ষকদের বেতন নিয়ে দু:চিন্তা দেখা দিয়েছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিচালকদের মধ্যে। স্কুল বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীদের বেতনও বন্ধ। অথচ এই বেতন দিয়ে স্কুলের আনষাঙ্গিক খরচ ও শিক্ষকদের বেতন পরিশোধ করা হয়। এমন অবস্থায় সেপ্টম্বর পর্যন্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকলে অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আর্থিক সংকটের কারণে হয়তো চিরতরে বন্ধ হয়ে যাবে। এতে শিক্ষাজীবন হুমকির মুখে পড়বে হাজার হাজার কমলমতির শিক্ষার্থীর। অপরদিকে বেকার হয়ে যাবে এই সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কর্মরত শিক্ষক-শিক্ষিকারা। ইতিমধ্যে সামান্য বেতনে চাকরী করা অনেক শিক্ষক পরিবার নিয়ে মানবেতন জীবন-যাপন করছেন।

বক্তারা আরও বলেন, এমন অবস্থায় আমাদের ঐক্যবদ্ধভাবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণের জন্য উদ্যোগ নিতে হবে। প্রয়োজনে সংবাদ সম্মেলন ও প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করতে হবে।

উল্লেখ্য, সিদ্ধিরগঞ্জে ১৬২টি কিন্ডার গার্টেন এর মধ্যে ১৪৫টি চালু রয়েছে। যদিও করোনার কারণে এখন সব বন্ধ। এই সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ৪ থেকে সাড়ে ৪ হাজার শিক্ষার্থী রয়েছে। এর সঙ্গে জড়িয়ে আছে ১৬০০ থেকে ১৮০০ শিক্ষক-শিক্ষিকা।

0