সীমান্তের কথা ও তানভীরের সংগীতে করোনা যুদ্ধে ঘরে থাকার ভিন্ন বার্তা

0

মুক্তিযুদ্ধে শিল্পীরা গান বাঁধতেন যোদ্ধাদের অনুপ্রাণিত করতে। তারা গাইতেন যোদ্ধাদের মনোবল বৃদ্ধির জন্য। এরপর নানা সময়ে নানা দুর্যোগ, প্রলয় কিংবা মহামারিতেও শিল্পীরা গাইতেন সাধারণ মানুষকে সচেতন করতে, মনোবল যাতে তারা না হারান, সে লক্ষ্যে। শাহাবাগ আন্দোলনের সময়কালকে বলা হত নতুন প্রজন্মের মুক্তিযুদ্ধ। সেসময় অনেক লেখক-শিল্পী গান বেঁধেছিলেন এই প্রজন্মের যোদ্ধাদের উৎসাহিত করতে।

এখন পুরো বিশ্বজুড়েই চলছে মহামারি করোনাভাইরাসের আগ্রাসি থাবা। বাদ পড়েনি এই বাংলাদেশও। এই মহামারির সাথে যুদ্ধ করে টিকে থাকার জন্য মানুষকে সচেতন করার জন্য নানা উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। সরকারের পাশাপাশি লেখক-শিল্পীরাও মানুষকে সচেতন করার যুদ্ধে শামিল হয়েছেন। একের পর এক গান বাঁধছেন তারা। উদ্দেশ্য গানে গানে মানুষকে সচেতন করা। তেমনই একজন সংগীত শিল্পী তানভীর শাহীন।

যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী এই সংগীত শিল্পী দীর্ঘদিন যাবৎ দেশের বাইরে থাকলেও তার মন-প্রাণ সবসময় পড়ে থাকে বাংলাদেশে। এবার তিনি এই দেশের মানুষকে সচেতন করার জন্য গাইলেন করোনায় সচেতনতামূলক একটি মৌলিক গান। ‘ঘরে থাকো ও হে মানুষ’ শিরোনামে গাওয়া এই গানটি লিখেছেন কবি ও সাংবাদিক সীমান্ত প্রধান। তানভীর শাহীনের জন্য এটি তার তৃতীয় লেখা গান।
গানটির সুর এবং সংগীতায়োজন করেছেন করেছেন শিল্পী নিজেই। অত্যন্ত শ্রুতিমধূর এই গানটি ইতোমধ্যে শ্রোতামহলে সাড়া ফেলেছে। করোনার এই পরিস্থিতিতে সবাইকে ঘরে থাকার বার্তা দিতেই তানভীর শাহীন গেয়েছেন এই গানটি। তুলে ধরেছেন এই পরিস্থিতিতে বাইরে আসার ফল কতটা ভয়ানক হতে পারে।

তানভীর শাহীন বলেন, এখন আমাদের সব থেকে বেশি প্রয়োজন ঘরে থাকা। এটাই একটা যুদ্ধ। আর যারাই ঘর থেকে বেরিয়ে আসছেন তারাই ভয়াবহ করোনার থাবায় আক্রান্ত হচ্ছেন। গানটিতে আমি সেই বার্তাই দিতে চেয়েছি, সবাই যেন ঘরে থাকে। বাইরে আসলেই পরিণতি কতটা ভয়াবহ হতে পারে সেদিকটাও উঠে এসেছে গানটিতে।

গানটির লেখক সীমান্ত প্রধান বলেন, তানভীর শাহীন অত্যন্ত গুণী একজন শিল্পী। তিনি অসম্ভব ভালো গান করেন। এর আগেও তার সাথে আমার কাজ করা হয়েছে। দীর্ঘদিন পর তার জন্য গান লিখতে পেরে নিজেকে ভাগ্যবান মনে করছি। জানি না কতটা ভালো লিখতে পেরেছি। তবে, চেষ্টা করেছি এই পরিস্থিতিতে মানুষকে ঘরে থাকার একটা বার্তা দিতে এবং বাইরে এলে পরিস্থিতি কতটা ভয়ানক হতে পারে সেটিও তুলে ধরার চেষ্টা করেছি। তানভীর শাহীন গানটি ভীষণ সুন্দর সুর, সংগীত করেছেন। গেয়েছেনও বরাবরের মত চমৎকার।

0