কথিত ম্যাজিস্ট্রেট কাঠগড়ায়, দুই এএসআই প্রত্যাহার

0

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: ম্যাজিস্ট্রেট পরিচয় দিয়ে অর্থ আদায়ের অভিযোগে আটক সোর্স শামীমকে নিয়মিত মামলায় আদালতে প্রেরণ করেছে পুলিশ। এ ছাড়া সহযোগিতার অভিযোগে জনতার ধাওয়ায় পালিয়ে বাঁচা সেই দুই পুলিশ কর্মকর্তাকে প্রশাসনিক কারণে প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইনে সংযোক্ত করা হয়েছে।

রোববার (১৮ আগস্ট) বিকালে বন্দর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রফিকুল ইসলাম এ তথ্য জানান।

রফিকুল ইসলামের দাবি, ‘সোর্স শামীম অসুস্থ। তাই রিমান্ড পাওয়া হয়নি। তদন্তের স্বার্থে তাকে রিমান্ড চাওয়া হতে পারে।’

এর আগে ১৭ আগস্ট রাত সাড়ে নয়টার দিকে বন্দর উপজেলার সাবদি এলাকায় ম্যাজিস্ট্রেট পরিচয় দিয়ে অর্থ আদায়ের অভিযোগে ওই সোর্সকে আটক করে স্থানীয় এলাকাবাসী। এ সময় দুই পুলিশ কর্মকর্তা বন্দর থানা পুলিশের দুই সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) আমিনুল হক ও আনোয়ার পালিয়ে রক্ষা পায়। এ ঘটনার খবর ছড়িয়ে পড়ে এলাকায় তীব্র উত্তেজনার সৃষ্টি হয়।

এলাকাবাসী জানায়, রাত সাড়ে নয়টার দিকে বন্দর থানার এএসআই আমিনুল হক, এএসআই আনোয়ার ও সোর্স শামীম ভ্রাম্যমাণ আদালতের কথা বলে সাবদি বাজার এলাকার নান্নুর মুদি দোকানে গিয়ে জরিমানা করে। এ সময় স্থানীয় এলাকাবাসী ও আশপাশের লোকজন বিভিন্ন প্রশ্ন করলে তাদের কাছ থেকে সদুত্তর না পেলে ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিষয়টি নিয়ে এলাকাবাসীর মধ্যে সন্দেহ সৃষ্টি হয়।

এক পর্যায়ে সোর্স শামীমের উপর এলাকাবাসী চড়াও হয়ে তাকে মারধর করেন। এ সময় অবস্থা বেগতিক দেখে পুলিশের এএসআই আমিনুল ও এএসআই আনোয়ার বাজারের পার্শ্ববর্তী একটি বাড়িতে আশ্রয় নেন।

পরে খবর পেয়ে বন্দর থানার ওসি এবং অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে এলাকাবাসীকে শান্ত করেন এবং সোর্স শামীমকে আটক করে থানায় নিয়ে যান।

0