১ সপ্তাহে র‌্যাবের অভিযানে ৩ধর্ষণকারীসহ ৭মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার

0

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: ৭জন মাদক ব্যবসায়ী ও ৩জন চাঞ্চল্যকর ধর্ষণকারীসহ মোট ১০আসামীকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব।

২৮মার্চ থেকে ৩এপ্রিল পর্যন্ত ৮টি অভিযানে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

এসময় তাদের কাছ থেকে মোট ৯৫৪০ পিস ইয়াবা, ৪০ কেজি গাঁজা, ১০০ ক্যান বিয়ার, ১৫০০ কেজি অ্যালকোহল, ১৮০০ বোতল নকল হ্যান্ড স্যানিটাইজার, ১২৫০ টি বিভিন্ন ব্যান্ডের লেবেল, ০১টি ট্রাক, ০১টি পিকআপ, ০১টি মাইক্রোবাস, ০৪টি মোবাইল, ০৫টি সিম, নগদ ১২ হাজার ৩৭০টাকা এবং ০১ জন অপহৃত ভিকটিমকে উদ্ধার করা হয়।

র‌্যাব-১১ এর স্কোয়াড্রন লিডার মো.রেজাউল হক স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এদের মধ্যে-

০৩ এপ্রিল বিকাল ৪টায় র‌্যাব-১১ এর একটি আভিযানিক দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে নারায়ণগঞ্জ জেলার ফতুলা থানাধীন কুতুবপুর এলাকা হতে চাঞ্চল্যকর শিশু ধর্ষণের অভিযোগে আসামী মো. হারুন অর রশিদ (৬০) কে গ্রেপ্তার করেন। হারুন ফতুল্লার মামুদপুর এলাকার হোল্ডিং-০৩ , ব্লক-০৩ এলাকার বাসিন্দা। তার পিতা- মৃত আ.মজিদ। তার গ্রামের বাড়ি চাঁদপুর এলাকার হাজীগঞ্জ থানার অলিপুর এলাকায়।

০৩ এপ্রিল ভোর রাত ০৫.০০ ঘটিকার সময় র‌্যাব-১১ এর একটি আভিযানিক দল কুমিল্লা জেলার কোতয়ালি থানাধীন আলেখারচর (বিশ্বরোড) সাকিনস্থ এলাকায় মাদক রিরোধী বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে অভিনব কায়দায় পিকআপে করে মাদক পরিবহনের সময় শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী মোঃ হাবিবুর রহমান হাবিবকে (৩৪) গ্রেপ্তার করা হয়। তার পিতা- মো. ইয়াছিন। তার গ্রামের বাড়ি কুমিল্লার বুড়িচংয়ের পুন্যমতী এলাকায়। উক্ত অভিযানে তার নিকট থেকে মোট ৩,৬৪০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট, ৩৪ কেজি গাঁজা, ০১ টি মোবাইল ফোন, ০২টি সীমকার্ড, মাদক বিক্রয়ের নগদ ৩৫০/- টাকা উদ্ধার করা হয় এবং মাদক পরিবহনের কাজে ব্যবহৃত ০১টি পিকআপ জব্দ করা হয়।

০২ এপ্রিল দিবাগত রাত ৯টায় নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ থানাধীন নোয়াগাঁও এলাকায় অবস্থিত ১টি অননুমোদিত কারখানায় বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে নকল হ্যান্ড স্যানিটাইজার উৎপাদনের দায়ে কারখানার মালিক মোঃ জামাল মিয়া(৫৪)কে গ্রেফতার করে। এ সময় উক্ত কারখানা হতে ১৫০০ লিটার অ্যালকোহল, ১০০ মিঃ লিঃ ওজনের ACME ব্যান্ডের নকল হ্যান্ড স্যানিটাইজার ১৩০০ বোতল, ৫০ মিঃ লিঃ ওজনের RANGER ব্যান্ডের নকল হ্যান্ড স্যানিটাইজার ২৫০ বোতল, ৫০ মিঃ লিঃ ওজনের লেবেলবিহীন হ্যান্ড স্যানিটাইজার ২৫০ বোতল সহ সর্বমোট ১৮০০ বোতল নকল হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও ১২৫০ টি RANGER ব্যান্ডের লেবেল জব্দ করা হয়। গ্রেফতারকৃত আসামী নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ থানাধীন নোয়াগাঁও এলাকার স্থায়ী বাসিন্দা।

০২ এপ্রিল ১২টা ২০মিনিট হতে ১টা ২৫মিনিটে ঘটিকা সময়ে র‌্যাব-১১ এর একটি আভিযানিক দল নারায়ণগঞ্জ জেলার সোনারগাঁ থানাধীন কাঁচপুর দক্ষিণ পাড়া সাকিনস্থ এলাকায় মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালনা করে ১০০ ক্যান বিয়ার উদ্ধারসহ মাদক ব্যবসায়ী আসামী মোঃ পিয়াস (২০)। তার পিতা- আব্দুস সালাম। গ্রামের বাড়ি সোনারগাঁ উপজেলার কাঁচপুর পাঁচপাড়া এলাকায়।

০১ এপ্রিল রাত ১০টা ৩০মিনিটের সময় র‌্যাব-১১ এর একটি আভিযানিক দল কুমিল্লা জেলার চৌদ্দগ্রাম থানাধীন সাতঘরিয়া গাংরা এলাকায় মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালনা করে ০৬ কেজি গাঁজা, ০৩ টি মোবাইল ফোন, ০৩টি সীমকার্ড, মাদক বিক্রয়ের নগদ ৯,৮৭০/- টাকা মাদক পরিবহনের কাজে ব্যবহৃত ০১টি ট্রাক উদ্ধারসহ মাদক ব্যবসায়ী ১। মোঃ কামাল হোসেন (৩০), পিতা- মো. আব্দুল মতিন। গ্রামের বাড়ি নোয়াখালী জেলার কবিরহাট থানার জদ্দনন্দ গ্রামে। ২। মো. সাফায়েত হোসেন শাখাওয়াত (২০), পিতা- মোঃ আব্দুল মতিন। তার গ্রামের বাড়ি কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম থানার কালিকাপুর এলাকায়। ৩। মোঃ তানভীর (২৭), পিতা- মৃত আলী আকবর। তার গ্রামের বাড়ি চাঁদপুরের হাজীগঞ্জে।

৩১ মার্চ রাত ৯টায় ঘটিকার সময় র‌্যাব-১১ এর অভিযানে নারায়ণগঞ্জ জেলার সিদ্ধিরগঞ্জ থানাধীন ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে চিটাগাংরোড এলাকায় গোপন সূত্রে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে চট্টগ্রাম থেকে ঢাকাগামী একটি মাইক্রোবাসে তল্লাশী করে ৫ হাজার ৯০০ পিস ইয়াবা ও মাদক বিক্রির নগদ ২১৫০/- টাকা উদ্ধার করা হয় এবং ইয়াবা পাচারের দায়ে মাদক ব্যবসায়ী মোঃ আনোয়ার হোসেন(২৬)কে গ্রেফতার করা হয়। এ সময় ইয়াবা পাচারে ব্যবহৃত একটি নোহা মাইক্রোবাসও জব্দ করা হয়।

২৯ মার্চ ৩টার সময় র‌্যাব-১১ এর আভিযানিক দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কুমিল্লা জেলার কোতয়ালি থানাধীন বারপাড়া এলাকায় বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে কুমিল্লা জেলার কোতয়ালি থানার মামলা নং-৬৫ তারিখ ২৭/০৩/২০২০ইং ধারা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ (সংশোধনী ২০০৩) এর ৯(১)/৩০ তৎসহ ৩২৩/৩৭৯/৫০৬ পেনাল কোড চাঞ্চল্যকর ধর্ষণ মামলার এজাহারনামীয় পলাতক আসামী জাবেদ (৩০), পিতা- হাসেম সর্দার, সাং- বারপাড় (পশ্চিম পাড়া), থানা- কোতয়ালি জেলা- কুমিল্লা’কে গ্রেফতার করা হয়।

0