৩শ’ শিশু শিল্পীর জাপানের সনদ লাভ

0

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: গত ফেব্রুয়ারিতে অনুষ্ঠিত নারায়ণগঞ্জ, মুন্সিগঞ্জ, ঢাকা ও কুমিল্লার বিভিন্ন স্কুলের শিক্ষার্থীদের মধ্যে আয়োজন করা হয়েছিল জাপান অলিম্পিক ২০২০ উপলক্ষে ‘দ্য সেকেন্ড ওসিনো ফুজি আর্ট রিলে’। যাতে অংশ নেয় প্রায় ১৩০০ শিশু শিল্পী। সেখান থেকে নির্বাচকদের বাছাইকৃত ৩০০ শিশু শিল্পীর চিত্রকর্ম ফেব্রুয়ারি থেকে মার্চ ২০১৯ পর্যন্ত মাসব্যাপী জাপানের ফুজিতে একটি মিউজিয়ামে ছবি প্রদর্শিত হয়। যেখানে নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের সংখ্যাই বেশি। ১৬ জুন রোববার বিকেলে নারায়ণগঞ্জ চারুকলা ইনস্টিটিউটে এই সনদ বিতরণ করা হয়।
এ বিষয়ে বাংলাদেশ থেকে প্রধান সমন্বয়ক হিসেবে দায়িত্ব পালনকারী মোহাম্মদ সোলায়মান হোসেন বলেন, ২০২০ সালে জাপানে অলিম্পিক অনুষ্ঠিত হবে। অলিম্পিকে বাংলাদেশের খেলাধুলায় তেমন খুঁজে পাওয়া যায় না। তবে এই আর্টপিকে মাধ্যমে বাংলাদেশকে তুলে ধরা হবে পৃথিবীর মানুষের কাছে। অলিম্পিক চলাকালীন সময়ে ফুজি পর্বতের পাদদেশে বিশাল এলাকা জুড়ে এশিয়ার বিভিন্ন দেশের শিশু শিল্পীদের সাথে বাংলাদেশের শিশু শিল্পীদের চিত্রকর্মও থাকবে সর্বোচ্চ সংখ্যক। আনুমানিক দশ হাজার শিল্পকর্ম স্থান পাবে বাংলাদেশের। আর সেটারই প্রস্তুতি হিসেবে জাপানীজ ‘রিনরি ও মানাবু-কাই, বাংলাদেশ-এর উদ্যোগে ‘দ্য সেকেন্ড ওসিনো ফুজি আর্ট রিলে’ আয়োজন করা হয়েছে।
তিনি আরও বলেন, চিত্র প্রদর্শনীতে এশিয়ার ৪৮টি দেশের শিক্ষার্থীরা অংশগ্রহণ করছে। যেখানে বাংলাদেশও অন্যতম। প্রদর্শনীতে জায়গা পাওয়া ৩শ’ জনকে সনদ প্রদান করা হয়েছে। এছাড়া আগামী আগস্টের ৮ তারিখ থেকে ছবির চিঠি বা এতেগামী নামে বাচ্চাদের মধ্যে আরেকটি আয়োজন করা হবে যেখানে শিশুরা নিজের ভাষায় ছবি এবং লেখার মাধ্যমে নিজের মনের ভাবের আদান প্রদান করবে একটি পোস্ট কার্ডের মাধ্যমে। এভাবে পর্যায়ক্রমে আরও প্রোগ্রাম চলতে থাকবে এই অলিম্পিকটাকে ধরার জন্য। আর এই প্রক্রিয়াই যারা ভাল করবে তাদেরকে জাপান সিনকিয়াকো আর্ট রিসার্চ ইনস্টিটিউট এর পক্ষ থেকে প্রনোদনার ব্যবস্থা করা হবে।
সনদপত্র বিতরণ অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ চারুকলা চারুকলার ইনস্টিটিটের অধ্যক্ষ শামসুল আলম আজাদ। তিনি বলেন, খুবই আশাবঞ্জক ব্যাপার যে বাংলাদেশ থেকে শিক্ষার্থীরা দেশের বাইরে প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করছে। সেই সাথে সনদ প্রাপ্ত ৩শ’ জনের মধ্যে প্রায় আড়াইশত শিক্ষার্থী নারায়ণগঞ্জের। আর এ সকল শিক্ষার্থীদের প্রশিক্ষকদের প্রায় সকলেই নারায়ণগঞ্জ চারুকলা ইনস্টিটিউট-এর বর্তমান কিংবা প্রাক্তন ছাত্রছাত্রী। এটার আমাদের জন্য বিরাট গর্বের ব্যাপার। আমার ছাত্ররা দেশীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে প্রতিনিধিত্ব করছে এটা অত্যন্ত আনন্দের ব্যাপার। নারায়ণগঞ্জ সকল স্কুলেই আমাদের ছাত্র রয়েছে। নারায়ণগঞ্জের শিক্ষার্থীরা এর আগেও বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেছে। ছবি আঁকার দিক দিয়ে বাংলাদেশের মধ্যে নারায়ণগঞ্জ অন্যতম।
এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন চারুকলার ইনস্টিটিটের শিক্ষক শহীদ আহমেদ মিঠু। এশিয়ান আর্টপিক নারায়ণগঞ্জের সমন্বয়কের দায়িত্ব পালন করেন আমির হোসেন।

৪৩৯
0