কমরেড আবুল হোসেন ও কমরেড পিয়ারা বেগমের স্মরণসভা

0

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জ জেলা কমিটির উদ্যোগে ফতুল্লা থানা কমিটির সাবেক সভাপতি ও পার্টি সদস্য পিয়ারা বেগমের স্মরণসভা করেছে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি)।

সিপিবির জেলা কার্যালয়ে শনিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) বিকেলে এ স্মরণসভা অনুষ্ঠিত হয়।

জেলা কমিটির সভাপতি কমরেড হাফিজুল ইসলামের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি নারায়ণগঞ্জ জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক কমরেড শিবনাথ চক্রবর্তী, জেলা কমিটির সদস্য কমরেড দুলাল সাহা, কমরেড জাকির হোসেন, কমরেড বিমল কান্তি দাস, কমরেড আঃ হাই শরীফ, কমরেড শাহানারা বেগম, কমরেড সুজয় রায় চৌধুরী বিকু, কমরেড ইকবাল হোসেন, কমরেড নূরুল ইসলাম, কমরেড এম এ শাহীন, ফতুল্লা থানা কমিটির সভাপতি কমরেড রনজিত কুমার দাস, জেলা যুব ইউনিয়নের সভাপতি বিজয় কর্মকার, কমরেড আঃ সোবহান ও কমরেড মহিবুল্লা প্রমূখ।

নেতৃবৃন্দ বলেন, প্রান্তিক ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানির শ্রমিক আন্দোলনের মধ্য দিয়ে কমরেড আবুল হোসেন ১০৮০ এর দশকে কমিউনিস্ট পার্টির সাথে যুক্ত হয়েছিলেন। পার্টির সদস্য হয়েছিলেন এবং তল্লা-হাজীগঞ্জ অঞ্চলে শ্রমজীবী মানুষের মধ্যে পার্টির সাংগঠনিক যোগাযোগ বৃদ্ধি করেছিলেন। তাঁর সহধর্মিণী কমরেড পিয়ারা বেগমকে পার্টিতে টেনে এনেছিলেন। নিজের ছেলে ও মেয়েকে ছাত্র ইউনিয়নের সাথে যুক্ত করে দিয়েছিলেন। ভাবী কমরেড পিয়ারা বেগমকে নারী আন্দোলনের সাথে যুক্ত করে দিয়েছিলেন। কমরেড পিয়ারা বেগম নিজ অঞ্চলের নারীদের সংগঠিত করতেন। পারিবারিক জীবনে সীমাহীন অভাব-অনটনের মধ্যে দিন পার করতে হোত। তবুও পার্টির মিছিলটা বড় করার চেষ্টা থাকত সবসময়।

নেতৃবৃন্দ বলেন, দুই মাসের ব্যবধানে দু’জনের এই হটাৎ মৃত্যু খুবই দুঃখজনক! পিয়ারা ভাবী হটাৎ ষ্ট্রোকে মৃত্যুবরণ করেছিলেন। চিকিৎসা করার সময়-সুযোগ পাওয়া যায় নি। দুই মাসের ব্যবধানে আবুল ভাইও ষ্টোক করলেন। এভাবে একই পরিবারে পর পর দুজনের মৃত্যু একেবারেই মেনে নেওয়া যায় না। পার্টি গড়ে তোলার ক্ষেত্রে এ দুই কমরেডের অবদান আমরা কোনদিন ভুলবো না।

0