ডিভোর্সী স্বামীর সাথে ফের সংসার, অবশেষে আত্মহত্যা 

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: ডিভোর্স হওয়ার পর আলাদা হলেও, কিছুদিন পর ফের স্বামীর সাথে সংসার করে ময়না। বেশ কয়েকমাস ভালো থাকার পর আবার বিচ্ছেদ হয় তাদের। এক পর্যায়ে সেই স্বামীর ঘরে আত্মহত্যা করেন ময়না। সোমবার (২৪ জানুয়ারী) দুপুরে ফতুল্লার পঞ্চবটী বন বিভাগ সংলগ্ন ফয়সালের পরিত্যক্ত ইটভাটাস্থ তালাকপ্রাপ্ত স্বামী রেজাউলের ঘরে আত্মহত্যা করেন তিনি।


নিহত ময়না (১৯) বরগুনা জেলার আমতলী থানার চরগাছিয়ার মো. আলমের মেয়ে। পরে মৃত দেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য হাসপাতালে নিয়ে যায়।

এ ঘটনায় ফতুল্লা মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) রাসেদ জানান, নিহত ময়নার সাথে বেশ কয়েক মাস পূর্বে তার স্বামী রেজাউলের সাথে ডিভোর্স হয়। এরপর তারা আবার উভয়ে মিলিত হয়ে সংসার শুরু করে। ৮-১০ দিন পূর্বে তাদের মধ্যে আবারও বিচ্ছেদ হয়। ময়না পূর্ব থেকেই লোহার মার্কেট সংলগ্ন আরবি গার্মেন্টসে চাকুরী করে এবং পাশেই ভাড়া বাসায় বসবাস করে আসছিলো। অপর দিকে স্বামী রেজাউল ও একটি গার্মেন্টসে চাকুরী করে আসছিলো। এবং বন বিভাগ সংলগ্ন ফয়সালের পরিত্যক্ত ইট খোলার জায়গায় তার বাবাকে নিয়ে একটি ঘরে বসবাস করতো। ফয়সালের বাবা স্থানীয় একটি গার্মেন্টসে নিরাপত্তারক্ষীর দ্বায়িত্বে রয়েছে। সোমবার সকালে পিতা-পুত্র উভয়েই নিজ নিজ কর্মস্থলে চলে যায়। দুপুরে দুইটার রেজাউলের বাবা দুপুরে খাবার খেতে এসে দেখতে পায় যে, ঘরের আড়ার সাথে ওড়না পেঁচানো ময়নার ঝুলন্ত লাশ। পরে পুলিশে সংবাদ দিলে দুপুর তিনটার দিকে ঘটনাস্থলে গিয়ে মৃত দেহ উদ্ধার করা হয়। পরে ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রেজাউল কে আটক করে থানায় নিয়ে আসে।

ফতুল্লা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রকিবুজ্জামান জানান, নিহত ময়নার মৃত দেহ উদ্ধার করে নারায়ণগঞ্জ জেনারেল ভিক্টোরিয়া হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ বিষয়ে নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে এখনো কেউ লিখিত অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।