তাজরিন অগ্নিকাণ্ডে নিহত শ্রমিকদের সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: আশুলিয়ার তাজরিন ফ্যাশনে আগুনে পুড়ে নিহত শ্রমিকদের সমাধিতে গার্মেন্ট শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র নারায়ণগঞ্জ জেলা কমিটির পক্ষ থেকে পুস্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধা নিবেদন ও স্মরণ সভা করা হয়। বুধবার (২৪ নভেম্বর) সকাল ৯ টায় ওই শ্রদ্ধা নিবেদন ও স্মরণ সভার আয়োজন করা হয়।


সভায় সভাপতিত্ব করেন সাদেকুর রহমান শামীম। এছাড়াও বক্তব্য রাখেন সংগঠনের কেন্দ্রীয় নেতা দুলাল সাহা, নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি এম এ শাহীন, সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন, সহ-সভাপতি আবদুস সালাম বাবুল, সদস্য মুস্তাকিম ও নুর ইসলাম আক্তার প্রমুখ।

এসময় নেতৃবৃন্দ বলেন, তাজরিন ফ্যাশনে আগুনে পুড়িয়ে ১১৪ জন শ্রমিককে হত্যা করা হয়েছে। আজো খুনি মালিক দেলোয়ার হোসেন সহ দোষীদের কোন বিচার হয়নি। নিহত-আহত শ্রমিক পরিবার উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ পায়নি। যা পেয়েছে নাম মাত্র অর্থ দেয়া হয়েছে। আহত শ্রমিকের চিকিৎসা সম্পন্ন করা ও বিকলাঙ্গদের পুর্নবাসন করা হয়নি। তবে সরকারের কাছ থেকে ৫৫ জন নিহত শ্রমিকের প্রাপ্তি হয়েছে জুরাইন কবরস্থানে এক খন্ড জমি। বিচারহীনতার কারণে একের পর এক দুর্ঘটনা ঘটেই চলেছে। তাজরিনের পর রানা প্লাজায় ১১৩৪ জন ও গত জুলাই মাসে রূপগঞ্জের হাসেম ফুডে ৫৪ জন শ্রমিকের প্রাণহানির ঘটনা সহ কয়েক দশকে অসংখ্য শ্রমিকের প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে। আজ অব্দি কোন একটি শ্রমিক হত্যার বিচার হয়নি। গ্রেপ্তার হওয়া অপরাধীরা জামিনে মুক্তি পেয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে।

নেতৃবৃন্দ আরও বলেন, মুনাফাখোর মালিকরা সরকারের ও বিজিএমইএ, বিকেএমইএ’র আশ্রয় প্রশ্রয় পেয়ে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। তারা আইন কানুনের তোয়াক্কা না করে নিরাপত্তাহীনতার মধ্যে শ্রমিকদের কাজ করতে বাধ্য করে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিচ্ছে। যখন কোন দুর্ঘটনা ঘটে তখন দেশ জুড়ে আলোচনা সমালোচনা নিয়ে কিছু দিন তোলপাড় হয় কিন্তু দায়ীদের কোন শাস্তি হয় না। প্রচলিত আইন যুগোপযোগী করে অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেয়ার বিধান করাসহ কর্মক্ষেত্রে শ্রমিকদের জীবনের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। নিহত শ্রমিক পরিবারকে আন্তর্জাতিক মান অনুসারে ক্ষতিপূরণ প্রদান ও আহতদের চিকিৎসা সম্পন্ন করতে হবে। যারা বিকলাঙ্গ হয়েছে তাদের পুর্নবাসন করতে হবে। বাজারে নিত্যপণ্যের দাম বেড়েছে পরিবহন ভাড়া ও ঘর ভাড়া বেড়েছে ফলে শ্রমিকদের প্রাপ্ত মজুরিতে জীবন ধারণ করা সম্ভব হচ্ছে না। অবিলম্বে নিম্নতম মজুরি বোর্ড পুর্ণ গঠন করে গার্মেন্টস শ্রমিকদের নিম্নতম মজুরি ২০ হাজার টাকা করার দাবি জানান।