নারায়ণগঞ্জে টিটুর হাত ধরে তৈরী হচ্ছে আধুনিক স্পোর্টস কমপ্লেক্স

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: ব্যবসা-বানিজ্যের দিক দিয়ে প্রাচ্যের ডান্ডি হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে নারায়ণগঞ্জ। তবে বিগত বেশ কয়েক যুগ ধরে খেলাধুলার দিক দিয়ে পিছিয়ে আছে এই জেলা। জাতীয় পর্যায়ে অনেকেই খেলার সুযোগ পেলেও, তেমন কোন আধুনিকতার ছোয়া পায়নি এ জেলার খেলাঙ্গন।

তবে দীর্ঘ এতোদিন পর নারায়ণগঞ্জের খেলাঙ্গনের হাল ধরেছেন নারায়ণগঞ্জ ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক ও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের মিডিয়া সেল এর চেয়ারম্যান তানভীর আহমেদ টিটু।

এরই ধারাবাহীকতায়, নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার ইসদাইরে অবস্থিত জেলা ক্রীড়া সংস্থার জমিতে নির্মান করা হচ্ছে আধুনিক স্পোর্টস কমপ্লেক্স। এর আগে জেলা ক্রীড়া সংস্থার ব্যক্তিগত উদ্যেগে নির্মান করা করা হয় ক্রিকেট খেলার আধুনিক মাঠ ও সামসুজ্জোহা স্পোর্টস কমপ্লেক্স।

তানভীর আহমেদ টিটু বলেন, ‘এখানে আগে পুকুর ছিলো। পরে এনএসি’র পক্ষ থেকে এখানে মাটি ভরাট করে দেয়া হয়েছে এবং প্যাভিলিয়নটা নির্মান করে দেয়া হয়েছে। এছাড়া পরে এই জায়গাটিকে স্টেডিয়াম হিসেবে আমরা নিজেরাই তৈরি করেছি। কারন আমাদের নারায়ণগঞ্জে মাঠের অনেক সংকট। তাই আমরা দুটো মাঠকে আলাদা করেছি, একটি ক্রিকেটের জন্য আরেকটি ফুটবল এর জন্য। কারন ক্রিকেটের মাঠে অন্য কোন খেলা হলে মাঠের অবস্থাটা ভালো রাখা যায় না।’

‘এখানে বেশ কয়েক হাজার ছেলে প্রেকটিস করে, তাই মাঠের চারোপাশে তাদের জন্য প্রেকটিস উইকেটের ব্যবস্থা করে দেয়া হয়েছে। আমাদের আরো কিছু প্রেকটিস উইকেট করার জন্য বিসিবিকে বলেছি। তারা বলেছে যে এটা তারা করে দিবে।’

বর্তমানে সামসুজ্জোহা স্পোর্টস কমপ্লেক্সটিকে পুনাঙ্গ রুপ দিতে চলছে কাজ। কয়েক বছরের মধ্যেই এই পরিকল্পনা বাস্তবায়ন হবে উল্লেখ করে তানভীর আহমেদ টিটু বলেন, ‘এখানে একটি ফুটবলের মাঠ, একটি ক্রিকেট মাঠ, একটি ইনডোর স্টেডিয়াম, জিমনেশিয়ামসহ ইনডোর এর সকল খেলা গুলো যাতে পরিচালনা করা যায় সে পরিকল্পনা করা হচ্ছে। প্রতিমন্ত্রী মহোদয় একানে এসে দেখে গেছেন ও বিভিন্ন দিক নির্দেশনা দিয়ে গেছেন। এনএসি থেকে কর্মকর্তারা এসে একটি বাজেট তৈরি করেছে। আশা করছি এ বছরের মাধ্যে যদি সেটার অনুমোদন হয়ে যায় তাহলে পুর্নাঙ্গ কমপ্লেক্সটা হয়তো তারাতারি হয়ে যাবে।’

পুর্নাঙ্গ কমপ্লেক্স হওয়ার আগে এ মাঠে অনুষ্ঠিত হয়েছে ঢাকা ২য় ও ৩য় বিভাগ ক্রিকেট। অবকাঠামোগত কিচু উন্নয়ন হলে ঢাকা প্রিমিয়ার লীগের মতো খেলাও এই মাঠে অনুষ্ঠিত হতে পারে বলে মনে করেন নারায়ণগঞ্জ খেলাঙ্গনের উজ্জল এই নক্ষত্র।

তিনি বলেন, ঢাকা থেকে নারায়ণগঞ্জ আসতে সময় লাগে আধাঘন্টার মতো, তবে ট্রাফিকের কারনে সময়টা একটু বেশি লাগে। এখন আবার ৬ লেনের রাস্তার কাজ চলছে, সেটা হয়ে গেলে আরো তারাতারি আসা যাবে। এটি পুর্নাঙ্গ হয়ে গেলে আমরা অবশ্যই বিসিবির বিভিন্ন খেরার জন্য এই মাঠটা প্রভাইড করবো।