না.গঞ্জের আদালতে বাদি সেজে আপোসের আবেদন, কারাদন্ড

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: মামলার বাদি সেজে আদালতে হাজির হয়েছিলেন। আসামী পক্ষের সাথে করেছিলেন আপোসের আবেদনও। তবে, আদালতের সন্দেহ হয়। পরে জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে স্বীকার করে; সে ভূয়া বাদি।

নারায়ণগঞ্জ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ শামছুর রহমানের আদালতে সোমবার এ ঘটনায় রায় ঘোষণা করেন। অভিযুক্ত ভূয়া বাদি ও আসামীকে ৬ মাস করে ১ বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড ও ১ হাজার করে ২ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও ১০ দিন করে ২০ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

দন্ডপ্রাপ্ত আসামীরা হলেন-রংপুরের পীরগাছার পূর্ব বিরামনী কুন্ডা এলাকার বক্কার মিয়ার ছেলে সালাম ও নারায়ণগঞ্জ সদর থানার পাইকপাড়া এলাকার মৃত জালাল হোসেনের ছেলে আমান।

২০১২ সালের ২৮ অক্টোবর রাতে সোনারগাঁয়ের কাঁচপুরের ট্রাক টার্মিনালে ‘রোদেলা স্টোর’ নামের একটি দোকানে চুরি হয়। এ ঘটনায় ২৮ অক্টোবর পাইকপাড়া এলাকার পলাশ হোসেনের ছেলে আমান হোসেন, রায়েরটেক এলাকার সিদ্দিক ও ফরুককে আসামী করে সোনারগাঁ থানায় মামলা করেন দোকানটির মালিক আতিকুর ইসলাম স্বপ্ন।

ওই বছর ৩ ডিসেম্বর এক ব্যক্তিকে হাজির করে আসামী পক্ষের আইনজীবী জানান, বাদি পক্ষের সাথে আসামীর আপোষ হয়ে গেছে। আদালতের বিষয়টিতে সন্দেহ হলে বাদি হিসেবে উপস্থিত করা ওই ব্যক্তিকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। এক পর্যায়ে জানান, তাঁর প্রকৃত নাম সালাম। সে সোনারগাঁয়ে ভাড়া থেকে বসবাস করতেন, স্থায়ী ঠিকানা রংপুর জেলায়।

পরে আদালতের বেঞ্চ সহকারী মো. মোরশেদ আলম বাদি হয়ে মিথ্যা স্বাক্ষ দেওয়ার অভিযোগ এনে মামলা দায়ের করেন।

নারায়ণগঞ্জ আদালত পুলিশের পরির্দশক আসাদুজ্জামান জানান, আদালত স্বাক্ষ প্রমাণের ভিত্তিতে ভুয়া বাদি সালাম ও আসামী আমানকে ৪১৯ ও ১৮১ ধারায় ৬ মাস করে ১ বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড ও ১ হাজার করে ২ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও ১০ দিন করে ২০ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।