না.গঞ্জে বাসভাড়া বেশি, ৩৫ শতাংশ যাত্রীর চাপ বেড়েছে ট্রেনে

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ রুটে বাস ভাড়া ২০ টাকা বাড়িয়ে ৬৫ টাকা করা হয়েছে। ফলে বাস যাত্রীরাও দিয়েছে পিছুটান। ভোগান্তি ও খরচ কমাতে সাধারণ যাত্রীরা এখন ছুঁটছে শহরের রেল স্টেশনগুলোতে। এতে কিছুটা বেকায়দায় পড়েছে বাস মালিকরা। বাঁধ্য হয়েছেন বর্ধিত ভাড়া থেকে ৫ টাকা কমাতে।

নারায়ণগঞ্জ রেল স্টেশন ও বাস টার্মিনাল এলাকা ঘুরে সোমবার (৮ আগষ্ট) সকালে এমন চিত্র চোখে পড়ে। স্টেশন মাস্টাররা জানিয়েছেন, স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে গত দু্’দিন যাবত ৩৫ শতাংশ যাত্রীর চাপ বেড়েছে ট্রেনে।

শুক্রবার হঠাৎ করেই তেলের দাম বাড়িয়ে দেয় সরকার। শনিবার স্বাভাবিক ভাড়ায় পরিবহন চললেও রোববার বাস ভাড়া ২০ টাকা বাড়িয়ে দেওয়া হয়। তাই প্রথম দিয়ে তীব্র সমালোচনার মুখে পড়েন। বাধ্য হয়ে সোমবার বর্ধিত ভাড়া থেকে ৫ টাকা কমিয়ে প্রতি টিকেট ৬০ টাকা করা হয়। তারপরেও যাত্রী সংকট কাটেনি।

কারণ একই পথে ট্রেনে যাতায়াত করতে জনগণকে দিতে হচ্ছে মাত্র ১৫ টাকা।

নূর ইসলাম নামের এক ট্রেন যাত্রী বলেন, প্রতিদিন বাসেই যাতায়াত করতাম। কয়েকদিন পরপরই বাসের ভাড়া বাড়ছে। এমনিতেই সংসারের খরচ চালাতে হিমশিম খেতে হয়। তার ওপর নতুন করে ভাড়া বৃদ্ধিতে বেগ পেতে হচ্ছে। সিদ্ধান্ত নিয়েছি যত কষ্টই হোক, এখন থেকে ট্রেনেই যাতায়াত করবো।

আরবী নামের আরেক যাত্রী জানান, নিত্যপণ্যসহ সব কিছুর দাম দিন দিন বাড়ছে। এখন বাস ভাড়া বাড়ানো হলো। ফলে অফিসে যাওয়া আসার খরচও বেড়ে গেছে। এতে আমরা যারা চাকুরি করি তারা নিরুপায় হয়ে পড়েছি। কোনো দিশা খুঁজে পাচ্ছি না। কারণ আমাদের বেতন বাড়েনি, তা আগের মতই আছে। তাই এখন থেকে একটু কষ্ট হলেও কিছুটা খরচ কমানোর জন্য ট্রেনে করে যাতায়াত করবো।

এ বিষয়ে চাষাঢ়া স্টেশন মাস্টার খাজা সুজন বলেন, এ রুটে আট জোড়া ট্রেন চলাচল করে। বাসের ভাড়া বাড়ানোর পর থেকেই প্রায় প্রত্যেকটি ট্রেনে যাত্রীদের চাপ লক্ষ্য করা যাচ্ছে। আগের চেয়ে টিকেটও বেশি বিক্রি হচ্ছে।

নারায়ণগঞ্জ স্টেশন মাস্টার কামরুল ইসলাম বলেন, বাস ভাড়া বৃদ্ধির পর ট্রেনের যাত্রীর সংখ্যা বেড়েছে। আগের থেকে প্রায় ৩০ থেকে ৩৫ শতাংশ যাত্রী বেড়েছে ট্রেনে।