না.গঞ্জে লঞ্চডুবি: ৮ এপ্রিল গণশুনানি নৌ মন্ত্রণালয় তদন্ত কমিটির

0

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জে শীতলক্ষ্যা নদীতে লঞ্চডুবির ঘটনায় আগমি ৮ এপ্রিল (বৃহস্পতিবার) গণশুনানির আয়োজন করছে নৌ-মন্ত্রনালয় গঠিত তদন্ত কমিটি। এদিন সকাল এগারোটা থেকে দুপুর দুইটা পর্যন্ত বিআইডব্লিউটিএ নারায়ণগঞ্জ নদীবন্দর কার্য্যালয়ে এই গণশুনানি অনুষ্ঠিত হবে।


সোমবার (৬ এপ্রিল) দুপুরে বিআইডব্লিউটিএ নারায়ণগঞ্জ নদীবন্দর কার্য্যালয়ে নৌ-মন্ত্রনালয় গঠিত সাত সদস্যের তদন্ত কমিটির বৈঠকে এসব তথ্য জানানো হয়।

বৈঠকে নৌ-মন্ত্রনালয়ের যুগ্ন-সচিব ও তদন্ত কমিটির প্রধান আবদুস সাত্তার শেখ জানান, লঞ্চডুবির মর্মান্তিক দূর্ঘটনার সঠিক কারণ উদঘাটন করতে তদন্ত কমিটি কাজ করছে। বিআইডব্লিউটিএ, জেলা পুলিশ প্রশাসন, নৌ-থানা পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে গঠিত তদন্ত কমিটির গণশুনানিতে সাধারণ মানুষকে অংশ নিয়ে সহযোগিতা করতে অনুরোধ জানান কমিটির প্রধান।

এদিকে লঞ্চডুবির ঘটনায় মঙ্গলবার এক শিশুসহ আরো পাঁচজনের মরদেহ উদ্ধার হয়েছে। মংগলবার ভোর থেকে সকাল পর্যন্ত শীতলক্ষ্যা নদীর কয়লাঘাট এলাকায় দূর্ঘটনাস্থল থেকে লাশগুলো উদ্ধার হয়। এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হলো পঁয়ত্রিশ জন।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, ভোরে একে একে লাশগুলো ভেসে উঠলে স্থানীয়রা তিনটি উদ্ধার করেন। খবর পেয়ে নারায়ণগঞ্জ নৌ-থানা পুলিশ গিয়ে অপর দুইটি মরদেহ উদ্ধার করে। নিখোঁজদের স্বজনরা এসে লাশ শনাক্ত করলে মরদেহগুলো জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়। তাদের সবার বাড়ি মুন্সীগঞ্জ জেলায়। এসময় স্বজনদের আহাজারিতে এলাকার পরিবেশ ভারী হয়ে উঠে। পরে সদর উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা নাহিদা বারিকের উপস্থিতিতে লাশগুলো পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

উল্লেখ্য, গত রবিবার বিকেল ৫টা ৫৬ মিনিটে নারায়ণগঞ্জ কেন্দ্রীয় লঞ্চ টার্মিনাল থেকে সাবিত আল হাসান নামে লঞ্চটি অর্ধশতাধিক যাত্রী নিয়ে নারায়ণগঞ্জ লঞ্চ টার্মিনাল থেকে মুন্সীগঞ্জ লঞ্চ টার্মিনালের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার দিকে লঞ্চটি সদর উপজেলার কয়লাঘাট এলাকায় গেলে শীতলক্ষ্যা নদীর কয়লাঘাট এলাকায় একটি বালুবাহি বাল্কহেডের (কার্গো) ধাক্কায় নদীতে তলিয়ে যায়। এ ঘটনায় সোমবার লঞ্চটি উদ্ধারসহ রাত পর্যন্ত ঘটনাস্থল থেকে ত্রিশজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। লঞ্চডুবির ঘটনায় এখনো আরো কয়েকজন নিখোঁজ রয়েছেন বলে স্বজনরা দাবি করছেন।

0