না.গঞ্জ সিটি: ‘ভাগ্য বদলের’ নির্বাচনে উৎসবের আমেজ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: একদিকে মেয়র পদে দলীয় মনোনয়নপত্র বিক্রির ঘোষণা দিয়েছে বর্তমান ক্ষমতাশীন দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। অন্যদিকে নির্বাচন কমিশনও নিয়েছে সব ধরণের প্রস্তুতি। এখন পর্যন্ত নির্বাচন কমিশন (ইসি) ভোটের তারিখ নির্ধারন না করলেও নির্বাচনী আমেজ বইছে সিটি এলাকার পাড়া মহল্লা জুড়ে।

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনকে সামনে রেখে সভা, সমাবেশ আর সামাজিক অনুষ্ঠানে কাউন্সিলর প্রার্থীদের অংশ গ্রহণ সেই আমেজ ভোটারদের মাঝে আরও বাড়িয়ে দিচ্ছে।

জন্ম নিবন্ধন, মৃত্যু সনদের মতো গুরুত্বপূণ সেবা থেকে বঞ্চিত নগরবাসী। গত ১০ বছরে স্বাস্থ্য সেবা, বেসরকারি খাতে মান সম্মত শিক্ষা, বর্জ্য, যানজট, জলাবদ্ধতাসহ নানা দুর্ভোগ সমাধানে যেমন ব্যর্থতা রয়েছে মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভীর নেতৃত্বাধীন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের, তেমনি পরিকল্পিত নগরায়নের মতো সেবা দিতেও ব্যর্থ হয়েছে এ প্রতিষ্ঠান।

তাই অনেকেই এবারের সিটি নির্বাচনটিতে নগরবাসীর ভাগ্য বদলের নির্বাচন হিসেবে দেখছেন।

বর্তমান মেয়রের পক্ষে কাজ করা বিএনপির নেতারাই এখন এই মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভীর ব্যর্থতার কথা তুলে ধরেছেন। এমনকি নিজ দল আওয়ামী লীগের নেতারাও এই মেয়রকে ব্যর্থ বলে আখ্যা দিচ্ছেন।

তবে, এসব অপপ্রচার বলে উড়িয়ে দিচ্ছেন মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী। নির্বাচনী প্রচারণা না করলেও বিভিন্ন অনুষ্ঠানে গিয়ে এ বিষয়ে নানা মন্তব্যও করছেন তিনি।

এদিকে, নির্বাচনকে সামনে রেখে বিভিন্ন সভা সমাবেশের আয়োজন করছে কাউন্সিলর পদ প্রার্থীরা। নিজের মতো করে ভোটারদের আকৃষ্ট করার সব রকমের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন তারা। মোড়ে মোড়ে ব্যানার ফেস্টুন লাগিয়ে প্রচারণাও চালাচ্ছেন।

জানা গেছে, বর্তমান নির্বাচন কমিশনের মেয়াদ ফুরোবে আগামী বছরের ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝিতে, আর নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনে বর্তমানে নির্বাচিতদের মেয়াদ শেষ হচ্ছে ৭ ফেব্রুয়ারি। এই অবস্থায় বিদায়ের আগে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের নির্বাচন করে যেতে চাইছে কে এম নূরুল হুদা নেতৃত্বাধীন বর্তমান ইসি।

এ ব্যাপারে ৯০তম কমিশন বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে ২৭ নভেম্বর নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিব মো. হুমায়ুন কবীর খোন্দকার জানান, আগামী সপ্তাহে আরেকটি কমিশন বৈঠক রয়েছে। সেই বৈঠকে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচন নিয়ে আলোচনা হবে। সেখানে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে কবে নির্বাচন। আগামী ৩১ জানুয়ারির মধ্যে সব নির্বাচন সম্পন্ন করার হবে। নির্বাচন কমিশন এই সিদ্ধান্ত আগেই নিয়েছে।

আর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত মোহাম্মদ শহীদ বাদল জানান, ২৮ নভেম্বর থেকে দলীয় মনোনয়ন বিক্রি করবে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ।