ফতুল্লায় অনুমতি ছাড়াই ২৮ বছরের ১৭ বৃক্ষ কর্তন

0

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: বন বিভাগ বা সরকারি কোনো কর্তৃপক্ষের অনুমোদন না নিয়েই, ২৮ বছরের পুরনো ১৭ টি গাছ কেটে ফেলার অভিযোগ উঠেছে ফতুল্লার একটি স্কুল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে। এভাবে এত পুরনো গাছগুলো কেটে ফেলায় ওই স্কুলের প্রাক্তন ও বর্তমান শিক্ষার্থীদের মধ্যে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে।

বুধবার দিনের বেলা ফতুল্লা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের ওই গাছগুলো কাটা হয়। বৃহস্পতিবার রাত হতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম গাছ কাটার ছবি প্রকাশ পেলে চরম ক্ষোভ প্রকাশ পেতে থাকে। শুরু হয় ব্যাপক সমালোচরা। এভাবে অনেক পুরাতন গাছগুলো কেটে ফেলায় স্কুল কর্তৃপক্ষকে দায়ী করে অনেকেই বিরূপ মন্তব্য করেন।

স্কুলটির প্রাক্তন ও বর্তমান শিক্ষার্থীরা জানান, সেই ছোটবেলা থেকে গাছগুলোকে দেখে আসছি। গাছগুলোর প্রতি আমাদের একটি অন্যরকম মায়া কাজ করছিল। এছাড়া স্কুলে যখন শিক্ষার্থী ছিলাম তখন প্রচন্ড রোদে মাঝেমধ্যে গাছের নিচে দাঁড়িয়ে থাকতাম। কিন্তু এভাবে গাছগুলো কেটে ফেলায় অনেক কষ্ট পেয়েছি। স্কুলের বর্তমান এক শিক্ষার্থী জানান, স্কুল কর্তৃপক্ষ গাছ কাটা নিয়ে কোথাও কোনো কথা বলতে নিষেধ করেছেন।

শুক্রবার দুপুরে ফতুল্লা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আনোয়ার হোসেনের কাছে গাছ কাটার করার কারণ জানতে চাওয়া হয়। তিনি মুঠোফোন জানান, গাছগুলো ২৮ বছরের পুরাতন। ১ লাখ ৫ হাজার টাকায় গাছগুলো বিক্রি করা হয়েছে। যদিও গাছ কাটার বিষয়ে বন বিভাগ বা সরকারি কোনো অনুমোদন নেওয়া হয়নি। তবে, স্কুল কমিটি কর্তৃপক্ষ অনুমতি দিয়েছে।

তিনি গাছ কাটার কারন হিসেবে আরও জানিয়েছেন, গাছগুলো মূলত পোকা ধরে গিয়েছিলো সেজন্য কাটা হয়েছে।

এদিকে প্রধান শিক্ষকের সাথে দ্বিমত জানিয়ে স্থানীয়রা অভিযোগ করেন, গাছগুলো সজীব, সতেজ এবং পাতাগুলো সবুজ ছিল। কোন পোকা ধরা দেখা যায়নি। স্কুল কমিটি পকেট ভারী করার জন্যই গাছগুলো কেটেছে৷ তারা এ নিয়ে বিধি মোতাবেক সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করে গাছ কাটার তদন্ত দাবি করেছেন।

0