বিনা চ্যালেঞ্জে পার পাচ্ছেন না আইভী

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: ব্যাপক জল্পনা-কল্পনা শেষে নৌকা প্রতিক দেয়া হয়েছে বর্তমান সিটি মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভীকে। নৌকা পাওয়ার পর তার কর্মী সমর্থকদের মাঝে ব্যাপক উদ্দীপনা লক্ষ্য করা গেলেও বিনা চ্যালেঞ্জে নির্বাচনী বৈতরণী পার হতে পারছেন না তিনি। ইতোমধ্যে ভোটের মাঠে কোমার বেধে নামার ঘোষনা দিয়েছে ইউপি ভোটে চমক দেখানো ইসলামী আন্দোলন তথা হাতপাখার প্রার্থী। আর নির্বাচনী মাঠে নামার ঘোষনা দিয়েছেন আরও একজন শক্তিশালী প্রার্থী এড. শাখাওয়াত হোসেন। ২০১৬ সালের নির্বাচনে সিটি মেয়র পদে বিএনপির প্রার্থী ছিলেন তিনি। এবার বিএনপি এনসিসি নির্বাচনে না গেলে, স্বতন্ত্র প্রার্থী হতে যাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন শাখাওয়াত হোসেন নিজেই।

জানা গেছে, দুদিনের শ্বাসরুদ্ধকর অপেক্ষার পর শুক্রবার সন্ধ্যায় আওয়ামী লীগের সংসদীয় ও স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ড নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি সেলিনা হায়াৎ আইভীকে নৌকার মনোনয়ন দেন। মনোনয়ন ঘোষণার পর আনন্দে ফেটে পড়ে আইভী শিবির। শনিবার বিকেলে শহরের ২নং রেলগেইটস্থ দলীয় কার্যালয় থেকে মেয়র প্রার্থী আইভীর নেতৃত্বে বিশাল আনন্দ মিছিলও বের হয়।

এদিকে দলীয়ভাবে এ সরকারের অধীনে স্থানীয়সহ কোন নির্বাচনে যাবেনা বলে স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন বিএনপির মহাসচিব ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তবে তিনি বলেছেন, ব্যক্তিগতভাবে দলের কোন নেতা নির্বাচনে গেলে কোন আপত্তি নেই। এরই সূত্র ধরে এবার স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মাঠে নামছেন গতবারের বিএনপির প্রার্থী এড. শাখাওয়াত হোসেন। নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি ও সাত খুনের মামলায় বহুল আলোচিত আইনজীবী শাখাওয়াত নতুন প্রার্থী হিসেবে ৯৬ হাজার ৪০ ভোট পেয়েছিলেন। অপরদিকে নৌকার প্রার্থী আইভী পেয়েছিলেন ১ লাখ ৭৫ হাজার ৬১১ ভোট।

শনিবার রাতে শাখাওয়াত হোসেন লাইভ নারায়ণগঞ্জকে জানান, এই মুহুর্তে নির্বাচন আমাদের কাছে মুখ্য নয়, মুখ্য হচ্ছে দলীয় চেয়ারপার্সনের নিঃশর্ত মুক্তি ও চিকিৎসার ব্যবস্থা করা। এই দাবির প্রতি শ্রদ্ধা রেখে আমি প্রতিবাদ স্বরূপ নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচনে মেয়র পদে নির্বাচন করবো। রোববার বেলা ১১টায় মনোনয়ন কিনবো। যেহেতু বিএনপি ও চারদলীয় জোটের বিশাল ভোট ব্যাংক রয়েছে নারায়ণগঞ্জে। বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তিই হবে আমাদের নির্বাচনের মূল দাবি। পাশাপাশি দীর্ঘ ১৮ বছরে নারায়ণগঞ্জ নগরবাসী উন্নয়ণ বঞ্চিত হয়েছে, যারা নিগৃহীত হয়েছে তাদের প্রতিও আহ্বান থাকবে আধুনিক নারায়ণগঞ্জ গঠনে আমাদের পাশে থাকুন।

অপরদিকে শনিবার ইসলামী আন্দোলন তথা হাতপাখা প্রতিক নিয়ে মেয়র পদে লড়াই করতে যাচ্ছেন দলটির মহানগরের সভাপতি মাওলানা মাসুম বিল্লাহ। সম্প্রতি শেষ হওয়া ইউপি নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জের কয়েকটি ইউনিয়নে ভোটের চমক দেখিয়েছে পীর সাহেব চরমোনাইর হাতপাখা। সদর উপজেলার ১টি ইউনিয়নে তারা নির্বাচন থেকে সরে যাওয়ার ঘোষনা দিয়েও ১৩ হাজারের বেশী ভোট পেয়ে চমক দেখিয়েছে।

ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থী মাসুম বিল্লাহ বলেন, বিগত সময়ে এই সিটি মেয়র আইভীর নেতৃত্বে মসজিদ, মাদ্রাসা দখলের চেষ্টা করা হয়েছে। মসজিদ ভেঙ্গে সুপার মার্কেট করার অপচেষ্টা চালানো হয়েছে। এসব কারণে ধর্মপ্রাণ মানুষের হৃদয়ে রক্তক্ষরণ হয়েছে। আমি আশা করি, নগরবাসী পরিবর্তনের অঙ্গীকার নিয়ে এবার হাতপাখাকে জয়ী করবে।