ব্যক্তি অর্থায়নে স্কুলের জলাবদ্ধ মাঠ উঁচু করলো নাজিম উদ্দিন

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: স্কুল মাঠ অথচ ছিল জলাশয়ের মতো। তাই শিক্ষার্থীরা বছরের একটি সময় খেলাধুলা করতে পারতেন না, হতো না দৈনিক সমাবেশও।

অবশেষে সেই ৮৩ নং ভূইগর জনকল্যাণ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠ উঁচু করার কাজ শুরু হয়েছে।

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদের ভাইরাস চেয়ারম্যান মো. নাজিম উদ্দিন আহমেদের ব্যক্তি অর্থায়নে পরিচালিত হচ্ছে মাঠ উঁচু করার কাজ।

এলাকাবাসীকে সাথে নিয়ে শুক্রবার দুপুরে এই কাজের উদ্বোধন করেছেন মো. নাজিম উদ্দিন আহমেদ নিজেই।

মাঠটি উঁচু হলে শিক্ষার্থীরা খেলাধুলার পাশাপাশি দৈনিক সমাবেশ করতে পারবেন।

স্বাধীনতার ২ বছর পূর্বে ১৯৬৯ সালে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয়েছে বলে জানান স্থানীয়রা। তাদের মতে, স্বাধীনতার পর থেকে এলাকাটির শিশু কিশোরদের শিক্ষার মান উন্নয়নে বেশ ভূমিকা রেখেছে। এখানে পড়ালেখা করে অনেকেই এখন চিকিৎসক, আইনজীবী বা জনপ্রতিনিধি হয়েছেন। অথচ সেই বিদ্যালয়টিতে এখন অস্থিত্ব সংকট চলছে।

কাজের উদ্বোধনের সময় মো. নাজিম উদ্দিন আহমেদ বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশ যে ভাবে উন্নয়ন করে যাচ্ছে, তারই ধারাবাহিকতায় আমাদের প্রাণপ্রিয় পুরুষ, নারায়ণগঞ্জে উন্নয়নের রূপকার, শিক্ষানুরাগী, ক্রীড়ানুরাগী, নারায়ণগঞ্জ ৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান নারায়ণগঞ্জে উন্নয়নের জোয়ার বয়ে এনেছে। আপনারা জানেন, উনার করা ডিও লেটারে ও সরকারের অর্থায়নে হাজী পান্দে আলী উচ্চ বিদ্যালয়ে ৪টি ভবনে ১৪টি ফ্লোর করতে সক্ষম হয়েছি আমি। আমি এই স্কুলটির জন্যও উনার কাছে যাবো।

মো. নাজিম উদ্দিন আহমেদ বলেন, ১৯৭৯ থেকে ১৯৮৪ সাল পর্যন্ত আমি এই বিদ্যালয়ের পরিচালনা পরিষদের সভাপতি ছিলাম। কিছুদিন আগে আমি স্কুলটি জলাবদ্ধ অবস্থায় দেখে গেছি। তখন স্কুল কতৃপক্ষের সাথে বসে সিদ্ধান্ত নিয়েছে মাঠটি ব্যক্তিগত অর্থায়নে উঁচু করে দিবো। সেই সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, আজ উঁচু করার কাজ শুরু হয়েছে।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জোছনা রাণী সাহা বলেন, ‘বিদ্যালয়ের মাঠে পানি প্রায় ৫ বছর যাবত।  তাই বাধ্য হয়েই সমাবেশ আলাদা আলাদা শ্রেণি কক্ষে করানো হতো। শিক্ষার্থীরা খেলাধুলা করতে পারতো না, এখন মাঠটিতে বালু ভাড়াট হলে এই সমস্যা আর থাকবে না।’

এসময় উপস্থিত ছিলেন বিদ্যালয়ের সভাপতি এড. আল-আমিন সাউদ, প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা মোঃ আনোয়ার হোসেন।