ভাইকে মুক্ত করতে গিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণের শিকার তরুণী

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: মুক্তিপণ নিয়ে ভাইকে ছাড়াতে গিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণের শিকার হয়েছে ২০ বছর বয়সী এক তরুণী। এ ঘটনায় জড়িত এক ধর্ষক ও তাঁর সহযোগীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এখনও পলাতক রয়েছে আরও একজন।

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার মৈকুলি হাইওয়ে রোড এলাকায় শুক্রবার (২৫ নভেম্বর) রাতে এ ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ভুক্তভোগী তরুণী থানায় অভিযোগ দিয়ে মামলা হিসেবে গ্রহণ করে পুলিশ।

অভিযুক্ত আসামীরা হলো- রূপগঞ্জের শান্তিনগর এলাকার মোয়াজ্জেম সাউদের ছেলে ২৪ বছর বয়সী তুষার ও ২০ বছর বয়সী সাগর। এছাড়া রূপগঞ্জে মাছিমপুর দুলাল মিয়ার ২১ বছর বয়সী মাসুম মিয়া। এদের মধ্যে সাগর ও দুলাল মিয়াকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তুষার পলাতক রয়েছে।

অভিযোগে ওই তরুণী উল্লেখ করে, নরসিংদী থেকে পিকআপ নিয়ে ফেরার পথে ২৫ নভেম্বর রাত ১টার দিকে অজ্ঞাতনামা ৩ যুবক তাঁর ভাইয়ের গতিরোধ করে শান্তিনগর বালুর মাঠে নিয়ে আটকে মারধর করে। এক পর্যায়ে আমার ভাইয়ের মোবাইল থেকে আমার মোবাইলে ফোন দিয়ে মুক্তিপণ বাবদ ৫০ হাজার টাকা দাবি করে। আমি নগদ ২০ হাজার টাকা নিয়ে রাত ৩টায় ঘটনাস্থলে পৌঁছাই। সেখানে পৌঁছাতেই শওকত সাউদ নামের এক ব্যক্তির ভাঙ্গাড়ি দোকানে নিয়ে যায়। সেখানে আরও ৩ থেকে ৪ জন প্রবেশ করে আমাকে মারধর করতে শুরু করে। আমার সাথে থাকা নগদ ২০ হাজার টাকা, ৩.৫০ আনা ওজনের কানের দুল কেড়ে নেয়। এরপর আসামীদের মধ্যে ৩ জন রাত ৪ থেকে ভোর ৫টা পর্যন্ত পালাক্রমে ধর্ষণ করে। এ সময় আমার ডাক চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে আসামীরা পালিয়ে যায়।

অভিযোগে তরুণী আরও বলেন, ‘ধষণের সময় একে অপরকে তুষার ও সাগর নামে ডাকলো। পরে সেই নামের সূত্র ধরে আসামীদের ঠিকানা উদ্ধার করে।’

এ ব্যাপারে রূপগঞ্জ থানার পরিদর্শক (অপারেশন) তন্ময় মন্ডল লাইভ নারায়ণগঞ্জকে জানান, অভিযোগ পেয়ে সাথে সাথে মামলা গ্রহণ করে অভিযান চালিয়েছি। অভিযুক্ত আসামী সাগর ও মাসুম মিয়াকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়েছি। আর তুষারকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

এদিকে, নারায়ণগঞ্জের সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার (ক-সার্কেল) আবির হোসেন লাইভ নারায়ণগঞ্জকে জানান, আসামীদের শনিবার আদালতে পাঠানো হয়েছে।