ভারতকে দেখে আসুন সাবধান হই

0

এড. শাহ্ আলী মোহাম্মদ পিন্টু খান: ভারতকে দেখেও আমরা শিক্ষা নেই না। আজ ভারত মহামারি করোনার যুদ্ধে পরাস্ত প্রায়। গত ২৪ ঘন্টায় ভারতে মারা গেছেন ৩ হাজার ২ শতাধিক। দেশে করোনায় আরো ৬১ জনের মৃত্যু হয়েছে আর শনাক্ত ১৯১৪ জন এবং নারায়ণগঞ্জে মৃত্যু ২ জন, শনাক্ত বেড়ে ৬০ জন।

সরকার ১৬ মে পর্যন্ত লকডাউন বাড়িয়েছে বিধিনিষেধ আরোপ করেছে। যা অবশ্যই মানতে হবে গোটা জাতিকে। বিধিনিষেধ মানতে দেখা যাচ্ছে না।

ভারতের শ্মশানের গেটে ঝুলছে হাউজফুল নোটিশ।করোনাভাইরাস মহামারিতে বেসামাল ভারত, হিমসিম খাচ্ছে চিকিৎসা ব্যবস্থা। এক দেড় সপ্তাহ ধরে দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যা প্রায় সাড়ে ৩ হাজারের কাছাকাছি। হাসপাতালের মর্গ ও শ্মশানগুলোতে মৃতদেহের সারি পরে থাকতে দেখা যায় । শেষকৃত্যের জন্য ঘন্টার পর ঘন্টা অপেক্ষা করতে হচ্ছে স্বজনদের। আমাদের দেশে ঈদ উপলক্ষে শপিংমল গুলোতে প্রবেশের জন্য ঘন্টার পর ঘন্টা অপেক্ষা করতে দেখা যাচ্ছে শত শত অতিউৎসাহীদের।

ঈদ মানেই আনন্দ ,মুসলিম সম্প্রদায়ের প্রধান ধর্মীয় উৎসব হওয়ায় ছোট থেকে বড় সবার মাঝেই ঈদকে নিয়ে থাকে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা।
আজ যারা ঈদের জামা কিনতে ভীড় করছে উপর ওয়ালা মাফ না করলে হয়তো কাফনের কাপড়রের জন্য লাইন ধরতে হবে।

বৈশ্বিক মহামারি দাবা কিছুই আজ আমাদের সংযমি করছেনা, দমাতে পারছেনা। আমরা সাবধান হচ্ছি না। এ জন্য আমাদের কঠিন মূল্য দেয়া লাগতে পারে। ভারতের চিতায় আগুন, রাস্তায় মানুষের লাশ, বাতাসে লাশের গন্ধ, হাসপাতালে অক্সিজেনের অভাব, চিকিৎসার অপ্রতুলতা আমরা কিছুই দেখিনা।ভারতকে দেখেও কি আমরা সাবধান হবো না।

আসুন আমরা সংযমি হই, মানবিক হই। বৈশ্বক মহামারি করোনায় মানবতাবোধ সম্পন্ন মানুষ হই।

লেখক: সভাপতি, ব্ন্দর প্রেস ক্লাব

0