রূপগঞ্জে নির্বাচনী পরবর্তী সহিংসতা, আহত ১৮

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: রূপগঞ্জে নির্বাচনে জয়-পরাজয়কে কেন্দ্র করে নির্বাচনের পরবর্তী সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে। হামলাকারীরা ১২টি বসতবাড়িসহ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে তান্ডব চালানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে। হামলায় ব্যপক ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটে। দুই দফা হামলায় এইচএসসি পরিক্ষার্থীসহ ১৮ জন আহত হয়েছেন। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় চরম আতঙ্ক বিরাজ করছে। আতঙ্কে রয়েছে নারী,শিশু থেকে শুরু করে বৃদ্ধরাও।

মঙ্গলবার (২৩ নভেম্বর) রাতে ও পরদিন সকালে উপজেলার ভোলাব ইউনিয়নের গাউছবাড়ি এলাকায় এসব সহিংসতার ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, গত ১১ নভেম্বর ভোলাব ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ওই নির্বাচনে ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডে মেম্বার পদে বিল্লাল হোসেনকে পরাজিত করে বিজয়ী হন মোখলেসুর রহমান। বিজয়ী মেম্বার মোখলেছুর রহমানসহ তার নিয়োজি হারুন মিয়া, রমজান মিয়া, মামুন মিয়া, নুরুজ্জামান, শামসুজ্জামান, নই মিয়া, মানিক, বাচ্চু, শাহজালাল ও রাব্বিসহ অজ্ঞাত ৪০/৫০ জন রামদা চাপাতিসহ ধারালো অস্ত্রেশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে পরাজিত মেম্বার প্রার্থী বিল্লাল হোসেনের সমর্থকদের ১০টি বসতঘর ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে অতর্কিত হামলা চালায়।

হামলাকারিরা মনির কাজি, সালামের বাড়ি, নাইম, গাফ্ফার, দেলোয়ার, রমজান, লোকমান, মান্নান, এমারত, সুজন ও সাত্তারের বাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ব্যপক ভাংচুর ও লুটপাট চালিয়ে ব্যপক ক্ষতি সাধন করে। হামলাকারীদের হামলায় এইচএসসি পরিক্ষার্থী মুক্তি আক্তার, মোন্তাজ উদ্দিনের ছেলে দেলোয়ার ও সালাম, চান মিয়ার ছেলে নাইম মিয়া, নাইমের স্ত্রী সাবিনা, মনির কাজির ছেলে তানজিল, সাত্তারের ছেলে রিফাত, তানজিল কাজির স্ত্রী নুরনেছা, তানজিলের নয় মাসের ছেলে তাওহীদ, এমরতের ছেলে সামীম ও সানি, আমজদ আলীর ছেলে তানিছ, সালাম মিয়ার ছেলে রাকিবুল হাসান, নাইম মিয়া মেয়ে নাহিদা আক্তার ও ছেলে লিয়ন মিয়া, মৃত হেকিমের ছেলে চান মিয়া, দেলোয়ার মিয়ার ছেলে ইয়াসিন, সাত্তার মিয়ার স্ত্রী বিলকিস বেগম আহত হয়। এদের মধ্যে কয়েকজন আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলে জানা গেছে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনেন।

এদিকে, গোলাকান্দাইল ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের বিজয়ী মেম্বার নাসির উদ্দিনের সমর্থকরা পরাজিত মেম্বার প্রার্থী শাহিন দেওয়ানকে নানা ভাবে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে আসছিলো। মঙ্গলবার রাতে শাহিন দেওয়ানের বাড়িঘরে হামলা ভাংচুর ও লুটপাট চালানোর অভিযোগ করেন পরাজিত প্রার্থী শাহিন দেওয়ান। তবে, এ অভিযোগ সম্পূর্ণ অস্বীকার করেন বিজয়ী প্রার্থী নাসির উদ্দিন।

এ বিষয়ে রূপগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এএফএম সায়েদ বলেন, হামলাকারীদের গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনা হবে। এছাড়া বর্তমানে ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।