লিপি ওসমানের উদ্যোগে ময়লা অপসারণ হলো খেলার মাঠ থেকে

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: ফতুল্লা তক্কার মাঠ থেকে শত শত টন বাড়িঘরের বর্জ্য ময়লা অপসারণ করেছেন সোনাবাহিনীর সদস্যরা। এলাকা ভিত্তিক সমাজিক, সাংস্কৃতিক ও ওয়াজ মাহফিলসহ নানা আয়োজন সম্পন্ন হতো এ মাঠটিতে। কিন্তু হঠাৎ করেই প্রায় দুটি ফুটবল মাঠের সমান মাঠটি ভরে ফেলা হয় বাড়িঘরের বর্জ্য দিয়ে। এতে ওই এলাকার সাধারণ মানুষের মধ্যে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।

বিষয়টি নারায়গঞ্জ-৪ আসনের এমপি শামীম ওসমানের স্ত্রী নারায়ণগঞ্জ জেলা মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান সালমা ওসমান লিপিকে নব নির্বাচিত কুতুবপুর ইউপি সদস্য ইমান আলী জানায়। এক পর্যায়ে লিপি ওসমান বিষয়টি দেখতে গণমাধ্যম কর্মী এশিয়ান টিভির জেলা প্রতিনিধি হাবিবুর রহমানকে বিষয়টি দেখতে বলেন। পরে তিনি বিষয়টি নিয়ে ডিএনডি প্রজেক্ট প্রকল্প পরিচালক কর্নেল তাকভিমের সাথে কথা বলেন।

এ বিষয়ে কুতুবপুর ৮ নং ওয়ার্ডের নব নির্বাচিত ইউপি সদস্য ইমান আলী জানান, গণমাধ্যম কর্মী হাবিবুর রহমান গত বৃহস্পতিবার দুপুরে শিমরাইল এলাকার ডিএনডি প্রজেক্ট অফিসে সেনাবাহিনীর কর্মকর্তাদের সাথে ওই মাঠের ময়লা অপসারণের সহায়তা চেয়ে প্রায় তিন ঘন্টাব্যাপি বৈঠক করেন। সেখানে আমি একমাত্র ইউপি সদস্য হিসাবে আমি উপস্থিত ছিলাম। সেখানে হাবিবুর রহমান সেনাবাহিনী কর্মকর্তাদের এত বিশাল আকৃতির মাঠে ফেলা ময়লা অপসারনে কর্মকর্তাদের অনুরোধ করেন। সেই অনুরোধে সাড়া দিয়েই শনিবার সকাল থেকে দুটি ভেকু ও ড্রাম ট্রাক এনে ময়লার অপসারণ কাজ শুরু করেন।

এ বিষয়ে গণমাধ্যম কর্মী হাবিবুর রহমান জানান, পদ্মা সেতু প্রজেক্ট ডিরেক্টর শিবলী সাদিক আর আমি একই সাথে পড়াশোনা করেছি। আমি বিষয়টি দেখতে তাকে অনুরোধ করি। সে বর্তমান ডিএনডি প্রজেক্ট ডিরেক্টর কর্নেল তাকভীমকে বিষয়টি দেখতে বলেন। পরবর্তীতে আমরা গত বৃহস্পতিবার শিমরাইলে মিটিং করি।

তিনি আরো জানান, মূলত নারায়ণগঞ্জ জেলা মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান সালমা ওসমান লিপি নানা মানবতার কাজ করে যাচ্ছেন। এর আগে তিনি ফতুল্লার লালপুর এলাকার পানি নিষ্কাশনে নির্দেশ দিয়ে মানব সেবা করেছিলেন। এছাড়া করোনাকালসহ দেশের যে ক্রান্তিলগ্নে লিপি ওসমান মানুষের পাশে দাঁড়ান। বিভিন্ন সময় সে সব কাজের স্বাক্ষী হয়েছি। তক্কার মাঠ এলাকার মানুষের অনুরোধ পেয়ে লিপি ওসমান আমাকে বলেন বিষয়টি দেখতে। বাকী সব কাজ আল্লাহ সহজ করে দিয়েছেন।

এ বিষয়ে ডিএনডি প্রজেক্ট ডিরেক্ট্র কর্নেল তাকভীম জানান, হাবিবুর রহমান আমাদের সাথে এ বিষয়ে প্রথমে মোবাইলে যোগোযোগ করেন। পরবর্তীতে তিনিসহ আমরা একটি বৈঠক শিমরাইল ডিএনডি প্রজেক্ট অফিসে করি। সেই মিটিং থেকেই ময়লা অপসারণে আমরা এগিয়ে আসি।