শুভ জন্মদিন তানভীর আহমেদ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: জীবনের ৪৭ বছর অতিবাহিত করেছেন সদা হাস্যোজ্জ্বল ব্যক্তিত্ব তানভীর আহমেদ টিটু। ২২ মে তার জন্ম দিন। এমন দিনে শুভ কামনা তার প্রতি।

তানভীর আহমেদ টিটু বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক, নারায়ণগঞ্জ ক্লাবের চার বারের নির্বাচিত সাবেক সভাপতি, নারায়ণগঞ্জ জেলা ক্রীড়া সংস্থার ৩ বারের সাধারণ সম্পাদক।

১৯৭৪ সালের ২২ মে সাইফউদ্দিন আহমেদ ও সামছুন্নাহার বেগম দম্পতির ঘর আলো করে আসেন তারভীর আহমেদ টিটু। ২ ভাই, ২ বোনের মধ্যে সবচেয়ে ছোট হওয়ায় বেশ আদরের ছিলেন সকলের কাছে। জন্ম নারায়ণগঞ্জের উত্তর চাষাড়ায় নানীর বাড়িতে, জীবনের প্রথম ৪ বছর এ এলাকায়ই কাটিয়েছেন। তার পরের শৈশব-কৈশোর কাটে জামতলায় পৈতৃক বাড়িতে।

নিজের জন্মদিনে আগামী প্রজন্মকে তানভীর আহম্মেদ টিটু বলেন, সব সময় বাবা মার প্রতি নজর ও যত্নে রাখাটা আমাদের কর্তব্য। কারন, তাদের দোয়া ছাড়া কোন কিছুই অর্জন করা সম্ভব না। যারা জীবনে সফল হয়েছে, তাদের প্রত্যেকের জীবনে বাবা মায়ের দোয়া ছিলো।

নারায়ণগঞ্জ প্রিপ্রারেটি স্কুলের মাধ্যমে শিক্ষা জীবন শুরু হয়, পরে আদর্শ স্কুল, নারায়ণগঞ্জ হাই স্কুল ও সরকারি তোলারাম কলেজ অধ্যায়ন করেছেন।

নিকট আত্মিয় সানিয়া আহমেদকে ভালো লাগতো। সেই ভালোলাগা পারিবারিক ভাবে ১৯৯৯ সালে প্রিয় মানুষের সাথেই বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন তিনি। ছেলে ওয়ামিয়া আহমেদ ইরিত্রা ও মেয়ে ওয়াফিয়াল আহমেদ ইয়ারাতকে নিয়ে আলাদা এক রাজ্য আছে তানভীর আহমেদ টিটুর। ব্যবসা, ক্লাব কিংবা সংগঠনে নেতৃত্বে অগ্রভাগে থাকা এই নেতার সেই রাজ্যের নেতৃত্বে রয়েছেন সহধর্মিনী সানিয়া আহমেদ।

নিজের জন্মদিনেই ৩৫ বছর আগে প্রিয় খালাতো ভাইয়ের মৃত্যু হয়েছিলো, তাই জন্মদিন বড় পরিসরে পালন করা হয় না।

জীবনের ৪৭টি বছর অতিবাহিত করার পর তানভীর আহম্মেদ টিটু ভাষ্য, ‘আমি যতটুকু প্রত্যাশা করি, তার চেয়ে অনেক বেশি আল্লাহ আমাকে দিয়েছেন, আমি মনে করি। তাই আমার জীবনে অপূর্ণতার কিছু নেই। আমি একজন সৌভাগ্যমান মানুষ। তাই আল্লাহর কাছে লাখ লাখ শোকরিয়া।’

সব সময় কোর্ট-টাই-শার্ট পড়ে থাকা তানভীর আহম্মেদ টিটু ট্রাউজার-টি শার্টে স্বাচ্ছন্দবোধ করেন। পছন্দের খাবারের মধ্যে থাই ফুড, লেবানিজ কুনাফা খুব প্রিয়। প্রিয় ফুল গোলাপ ও বেলী।