শেখ হাসিনা ২ রাকাত নামাজ পড়তে চেয়েছে, জিয়া সেটা পড়তে দেয়নি: ভিপি বাদল

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জ্যেষ্ঠ পুত্র বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ ক্যাপ্টেন শেখ কামালের ৭২ তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে, দোয়া ও আলোচনা সভার আয়োজন করেছেন নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগ। শুক্রবার (৫ আগস্ট) বিকাল সাড়ে ৫টায় নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের কার্যলয়ে ওই আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

এ সময় আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন, নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হাই, সিনিয়র সহ সভাপতি খবির আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক এড. আবু হাসনাত মো. শহীদ বাদল (ভিপি বাদল), মুক্তিযোদ্ধার বিষয়ক সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল হুদা, দপ্তর সম্পাদক এম এ রাসেল, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক শেখ সাইফুল ইসলাম, উপ দপ্তর সম্পাদক হাবিবুর রহমান হাবিব, কার্য নির্বাহী কমিটির সদস্য আব্দুল কাদির দিলার, সামসুজ্জামান ভাষানী, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য খন্দকার রফিকুল ইসলাম টুকু, ফতুল্লা আওয়ামী লীগের সদস্য মো. আলমগীর।

আলোচনা সভায় জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এড. আবু হাসনাত মো. শহীদ বাদল (ভিপি বাদল) বলেন, মাত্র ২৬ বছর বয়সে বঙ্গবন্ধুর পুত্র শেখ কামালকে হত্যা করা হয়। এরপর মাসুম বাচ্চা শেখ রাসেলকেও হত্যা করা হয়। সেদিন ৪১জন সদস্যকে হত্যা করা হয়েছিলো। ধানমন্ডির ৩২ নাম্বার বাড়িটি রক্তে লাল হয়েছিলো সেদিন। এরপর যেদিন শেখ হাসিনা বাংলাদেশে আসার পর সেই বাড়িতে গিয়ে ২ রাকাত নামাজ পড়তে চায়, সেটাও জিয়াউর রহমান পড়তে দেয়নি। আজকে এই ইতিহাস গুলো মানুষের সামনে আনতে হবে।

তিনি বলেন, আজকে স্বাধীনতা বিরোধী শত্রুরা, ১৫ আগস্টের মাষ্টার প্লান করা জিয়াউর রহমানের বিএনপি। তারা আজ ঐক্যবদ্ধ হয়ে বাংলার জন্য জীবন দেয়া আওয়ামী লীগ যাতে ক্ষমতায় না থাকতে পারে সেই অপতৎপরতা চালাচ্ছে। সেই সময়ে বিএনপি কিছু বিপদগামী সেনা বাহিনী দিয়ে ক্ষমতায় আসে। এখনো তারা চেষ্টা করছে সেই একই ভাবে ক্ষমতায় আসার জন্য। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শুধু আওয়ামী লীগের সম্পদ নয়। তিনি পুলিশ বাহিনীর সম্পদ, সেনা বাহিনীর সম্পদ, তিনি বর্ডার গার্ডের সম্পদ, তিনি বাংলার ১৮ কোটি মানুষের সম্পদ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যদি বেচেঁ থাকে তাহলে এই দেশ বেচেঁ থাকবে। বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে এই দেশকে হাজার বছর পিছিয়ে দিয়েছে, কিন্তু শেখ হাসিনা উন্নয়নের মাধ্যমে এই দেশকে হাজার বছর এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। বিশ্বের বুকে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের রোল মডেল। এই বাংলার মানচিত্রে যে হাত রাখতে চাইবে তার হাত ভেঙ্গে দেয়া হবে। তাদের এই বাংলার মাটিতে পুতে ফেলা হবে।

ভিপি বাদল বলেন, আজ ষড়যন্ত্র করছে চারদিক থেকে বঙ্গবন্ধুর কন্যাকে হত্যা করার জন্য। আজকে এই আওয়ামী লীগ কার্যলয়ে দাড়িঁয়ে বলছি ওই ঘাতকদের উদ্যেশে, এটা ১৯৭৫ সাল না এটা ২০২২ সাল, পায়ের নিচে মাটি আছে কিনা সেটা দেখে কথা বলবেন। নারায়ণগঞ্জের মাটি আওয়ামী লীগের জন্মভূমি, যে মাটিতে বঙ্গবন্ধু বার বার এসেছেন এবং স্বাধীন সোনার বাংলার স্বপ্ন দেখেছেন। এই নারায়ণগঞ্জে মাটিতে তৎকালিন মহাজোটের নেতা শেখ কামাল ভাই, ৪ বারের জাতীয় সংসদ সদস্য নাছিম ভাই যে নারায়ণগঞ্জের আবাহনির প্রতিষ্ঠাতা। এদের ধ্বংস করার মাষ্টার প্লান করেছিলো জিয়াউর রহমান। মাষ্টারপ্লান করে ১৯৭৫ বঙ্গবন্ধুকে স্বপরিবারে হত্যা করে। এরপর জাতীয় চার নেতাকে হত্যা করা হয়।

নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হাই বলেন, শেখ কামাল অন্তন্য প্রতিবাদী মানুষ ছিলেন। তিনি একজন ক্রীড়া সংগঠক ছিলেন। আবহনী ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন তিনি। এছাড়া তিনি একজন শিল্পীও ছিলেন। বহু গুনের অধিকারী ছিলেন। আজ অনেক বড় বড় নেতাদের মধ্যে এটা দেখতে পাওয়া যায় না। আমি এই প্রিয় নেতার মাগফেরাত কামনা করি।