সদর মডেল থানায় ‘ওপেন হাউজ ডে’ অনুষ্ঠিত

লাইভ নারায়নগঞ্জ: কমিউনিটি পুলিশিং ও নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানা আয়োজনে ‘ওপেন হাউজ ডে’ অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার (৩ ডিসেম্বর) বিকাল সাড়ে ৩টায় সদর থানা প্রাঙ্গনে এই ওপেন হাউজ ডে পালন করা হয়। এ সময় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) মোহাম্মদ জায়েদুর আলম।


নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ শাহ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (‘ক’ সার্কেল) নাজমুল হাসান, নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ১৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর কবীর হোসেন, পূজা উদযাপন পরিষদের মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি অরুন দাস, আলীরটেক ইউনিয়ন পরিষদ ও গোগনগর উইনিয়ন পরিষদের মেম্বারসহ বিভিন্ন এলাকা থেকে আগত সাধারণ মানুষ।

নারায়ণগঞ্জ পুলিশ সুপার (এসপি) মোহাম্মদ জায়েদুর আলম বলেন, প্রতি মাসের ৩ তারিখে আমরা সদর থানায় ‘ওপেন হাউজ ডে’ পালন করি। আপনারা এখানে যারা আসছেন আপনাদের কাউকেই এই অনুষ্ঠানে দাওয়াত করে আনতে চাই না। আমি চাই আপনারা নিজে থেকে এখানে আসুন। আপনারা আপনাদের সমস্যার কথা বলুন। আমাদেরকে সমস্যা বলার পাশাপাশি সমাধান দিয়েও সহযোগীতা করুন। আপনাদের দাওয়াত করে এনে সমস্যার কথা জানার চেয়ে, আপনারা নিজে এসে সমস্যার কথা বললে বেশী খুশী হবো। আমরা চাই আপনাদের নিয়ে একটি সুন্দর নারায়ণগঞ্জ গড়ে তুলতে। আমি চাই পজিটিভ নারায়ণগঞ্জ। বিগত ২৩ মাসে নারায়ণগঞ্জ নিয়ে বিভিন্ন জায়গা থেকে ভালো ভালো মন্তব্য আসতেছে। প্রশংসিত হচ্ছে নারায়ণগঞ্জ।

উপস্থিত সাধারণ মানুষের বিভিন্ন মন্তব্য ও প্রশ্ন উত্তরে এসপি বলেন, সামনেই আসছে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন। সিটি কর্পোরেশনে যে ২৭টি ওয়ার্ড আছে, আমি চাই সব কাউন্সিলর প্রার্থীরা মিলে কাজ করুক। যাতে করে ঈদের আনন্দের মতো ভোট দিতে পারে।  তবে এখানে যারা নির্বাচন করবে তাদেরকেই মূখ্য ভুমিকা পালন করতে হবে যাতে কোন বিশৃঙ্খলা সষ্টি না হয়। প্রত্যেকটা কাউন্সিলর প্রার্থীরা শপথ করুন যে, আমি কোন গ্যাঞ্জামে যাবো না। বিভিন্ন সময় আমরা দেখেছি নির্বাচন নিয়ে মানুষ একটা আতঙ্ক কাজ করার মনে মধ্যে। শুধু নারায়ণগঞ্জ না বাকি ৬৩ জেলায়ও একই অবস্থা।

মাদকের বিষয়ে পুলিশ সুপার বলেন, আমরা মাদকের বিরুদ্ধে সোচ্চার আছি। কিন্তু এইটুকুই যথেষ্ঠ না। প্রতিটি এলাকায় মাদকের বিরুদ্ধে কমিটি গঠন করে সচেতন হতে হবে। মাদক নির্মূল করা শুধু মাত্র পুলিশের কাজ না। প্রতিটি জনগণের উচিৎ মাদক নির্মূল করা।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (‘ক’ সার্কেল) নাজমুল হাসান বলেন, যারা ভালো কাজ করে তাদের পাশে থাকে পুলিশ আর যারা অন্ধকার জগতে সাথে সম্পৃক্ত তাদের কাছে পুলিশ সুস্পট কঠোর। কোন অপরাধীকে ছাড় দেয়ার সুযোগ নাই। মাদক ব্যবসায়ী হোক বা সন্ত্রসী, আপনারা তথ্য দিয়ে আমাদের পাশে থাকবেন। আপনার যদি আমাদের পাশে থাকেন অপরাধকে বিপক্ষে থাকেন। তাহলে পুলিশের সাথে জনতার যে গ্যাপ আছে সেটি পূরণ হয়ে যাবে। সামনেই নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন। নির্বাচন কমিশনের যে নির্দেশনা আছে সে অনুযায়ী পুলিশের অবস্থান থেকে অবাধ সুষ্ঠু নির্বাচন হবে। সিটি নির্বাচনে যদি কেউ বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে চায় তাহলে পুলিশ কঠোর ব্যবস্থা নিবে।

তিনি আরও বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে কিশোর গ্যাং একটি বড় চ্যালেঞ্জ আমাদের কাছে। আমারা অভিবাবকদের একটি নিদ্রিষ্ট ভুমিকা আমরা চাই। আপনার সন্তান কোথায় যাচ্ছে কোথায় থাকছে সেই খবরা খবর রাখবেন। আপনার সন্তান কোন ভুল কাজ করছে কিনা, বা কোন আইন অমান্য করছে কিনা সেদিকে নজর রাখবেন। কেননা কিশোররা আমাদের আগামী দিনের চাহিদা শক্তি। তারা ঠিক না থাকলে আমাদের মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর স্বপ্নের বাংলাদেশ গতিরোধ হবে।