সপ্তাহের শ্রেষ্ঠ দিন ‘জুমআবার’

0

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: শুক্রবার পবিত্র জুমআবারকে বলা হয় গরীবের ঈদের দিন। এটা ছাড়াও আর নানা কারণে ইসলামে জুমআবার অনেক গুরুত্বপূর্ণ। আরবি শব্দ জুমুআ-এর অর্থ একত্র হওয়া। আল্লাহতায়ালা এই দিনটিকে ঈদের দিন হিসেবে নির্ধারণ করেছেন। এই দিনে মুসলিম উম্মাহ সাপ্তাহিক ঈদ ও ইবাদত উপলক্ষে মসজিদে একত্র হয় বলে দিনটাকে ইয়াওমুল জুমাআ বা জুমার দিন বলা হয়।


জুমআর দিনে সূচনা:

জুমআর সূচনা ও ফরজ হয় প্রথম হিজরি থেকে। প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম পবিত্র নগরী মক্কা থেকে হিজরত করে মদিনার কুবায় গিয়ে অবস্থান করেন। সেখান থেকে জুমআর দিন মদিনায় যাওয়ার পথে বনি সালেম গোত্রের উপত্যকায় পৌঁছলে জোহরের সময় হয়ে যায়। তিনি সেখানেই জুমআ আদায় করেন। ইসলামের ইতিহাসে এটাই ছিল প্রথম জুমআ। তবে হিজরতের পর জুমআর নামাজ ফরজ হওয়ার আগে বিশ্বনবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের নবুয়তের ১২তম বর্ষে মদিনায় নাকিউল খাজিমাতে ২ রাকাআত জুমআ পড়ার প্রমাণ পাওয়া যায়। সেখানে হজরত আসআদ বিন জুরারাহ রাদিয়াল্লাহু আনহুর ইমামতিতে শুক্রবার সে নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। আর সেটি ছিল নফল নামাজ।

এ প্রসঙ্গে মুহাম্মদ ইবনে সিরীন থেকে বর্ণিত আছে যে, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহুআলাইহি ওয়া সাল্লাম মদিনায় আগমনের পর এবং জুমআর নামাজ ফরজ হওয়ার আগে একবার মদিনার আনসারগণ একত্রিত হয়ে আলোচনা করলেন যে, ইয়াহুদিদের জন্য সপ্তাহে একটা দিন নির্দিষ্ট আছে, যে দিনে তারা সকলে একত্র হয়।

আর নাসারাদেরও সপ্তাহে সবার একত্রিত হওয়ার জন্য একদিন নির্ধারিত আছে। সুতরাং আমাদের জন্য সপ্তাহে একটা দিন নির্দিষ্ট হওয়া প্রয়োজন, যে দিনে আমরা সবাই সমবেত হয়ে আল্লাহকে স্মরণ করব, নামাজ আদায় করব।

অতপর তারা আলোচনাকালে বললেন, শনিবার ইহুদিদের আর রোববার নাসাদের জন্য নির্ধারিত। অবশেষে তাঁরা ‘ইয়াওমুল আরুবা’ (শুক্রবার)-কে গ্রহণ করলেন এবং তারাই এদিনকে ‘জুমআর দিন’ নামকরণ করলেন। (মুসান্নাফে আবদুর রাজ্জাক, সীরাতুল মুস্তাফা, তিরমিজি)

আল্লাহতায়ালা এই দিনের প্রতি গুরুত্ব দিয়ে কোরআনে ইরশাদ করেন, ‘মুমিনগণ! জুমার দিনে যখন নামাজের আজান দেওয়া হয়, তখন তোমরা আল্লাহর ইবাদতের জন্য দ্রুত যাও এবং বেচাকেনা বন্ধ করো। এটা তোমাদের জন্য উত্তম, যদি তোমরা বোঝ।’ (সূরা জুমুআ :০৯)

জুমআর গুরুত্বঃ

শুক্রবার জোহরের পরিবর্তে জুমআর নামাজকে ফরজ করা হয়েছে। জুমআর দুই রাকাআত ফরজ ও ইমামের খুতবাকে জোহরের চার রাকাআত ফরজ নামাজের স্থলাভিষিক্ত করা হয়েছে। সপ্তাহের এদিনে জুমআর খতিব তা বক্তেব্যে উম্মতের যাবতীয় প্রয়োজনীয় গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে কুরআন ও হাদিসের আলোকে নির্দেশনা ও সমাধানমূলক উপদেশ দেবেন। হাদিসে এসেছে-

– হজরত তারেক ইবনে শিহাব রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইলি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ক্রীতদাস, নারী, নাবালেগ বাচ্চা ও অসুস্থ ব্যক্তি এই ৪ প্রকার মানুষ ছাড়া সব মুসলমানের ওপর জুমআর নামাজ জামাআতে আদায় করা অপরিহার্য কর্তব্য (ফরজ)।’ (আবু দাউদ, মুসতাদরেকে হাকেম)

এ দিনে করনীয়ঃ

১) ফজরের সালাত জামাতে আদায় করুন (আল-বায়হাকী, সহী আল-আলবানি-১১১৯)
২) জুমআর দিন গোসল করা (বুখারী এবং মুসলিম:১৯৫১ এবং ৯৭৭)
৩) জুম্মার সালাতে শীঘ্র উপস্থিত হওয়া (বুখারী এবং মুসলিম: ৯২৯ এবং ১৯৬৪)
৪) পায়ে হেঁটে মসজিদে গমন করা (আল-তিরমিজি-৪৯৬)
৫) মনোযোগ সহকারে জুমআর খুৎবা শোনা (আল-বুখারী ৯৩৪ এবং মুসলিম ৮৫১)

0