সারা বিশ্বে এখন সংকট চলছে, শুধু বাংলাদেশে না: মোহাম্মদ হাতেম

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: আগামী সেপ্টেম্বর থেকে লোডশেডিং অর্ধেকে নামিয়ে আনার পরিকল্পনা করেছে সরকার। এ কারণে একেক শিল্প এলাকায় একেক দিন কারখানা বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। যাতে করে ওইসব শিল্প এলাকায় নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত করা যায়। তাই কবে কোন এলাকায় সাপ্তাহিক বন্ধ থাকবে সেটিও বৃহস্পতিবার (১১ আগস্ট) ঠিক করে দেওয়া হয়েছে।

বিষয়টি নিয়ে নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন শিল্প উদ্যোক্তার মাঝে দেখা দিয়েছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। তবে, গ্যাসের সরবরাহ ঠিক থাকলে এই সমস্যাটুকুও কাটিয়ে ওঠা যাবে বলে মনে করছেন তারা।

এ বিষয়ে গণমাধ্যমকে দেয়া এক প্রতিক্রিয়ায় বাংলাদেশের নিট পোশাকশিল্প মালিকদের শীর্ষ সংগঠন বিকেএমইএ’র নির্বাহী সভাপতি মোহাম্মদ হাতেম বলেন, সরকার বিদ্যুৎ সরবরাহ রেশনিং করেছে, বর্তমান পেক্ষাপটে এটা খুবই স্বাভাবিক। কারণ সারা বিশ্বেই এখন সংকট চলছে, শুধু বাংলাদেশে না। এ রেশনিং চালানোর জন্য আমাদের প্রস্তুতি নিতে হবে, যেটা শুক্রবার থেকেই। এতে আমাদের একটু সমস্যা হবে। কারণ আমাদের সঙ্গে এলাকাভিত্তিক রেশনিং করার কথা ছিল, কিন্তু করা হয়েছে বিদ্যুতের ফিডার ওয়াইজ। এতে কারখানায় সমন্বয়ের সমস্যা হবে। কারণ আজ পাশের একটা কারখানা বন্ধ, সেখানে আমার কারখানার একটা অংশ রয়েছে, সেখানে কিন্তু বিদ্যুৎ সরবরাহ হচ্ছে না। ফলে সেখানে আমার সমন্বয় করতে একটু অসুবিধা হবে। তারপরও আমরা শুরু করতে চাই। এতে কোথাও সমস্যা হলে আমরা সরকার ও বিদ্যুৎ বিভাগের সঙ্গে কথা বলে সমন্বয় করার চেষ্টা করবো।

তিনি আরও জানান, বিদ্যুতের চেয়ে আমরা আরও বড় সমস্যায় আছি, সেটা হলো গ্যাস। গত বুধবার সকাল থেকে বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টা পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জ শিল্প এলাকায় গ্যাস সরবরাহ বন্ধ ছিল। এতে আমরা ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছি। এ বিষয়ে আমরা তিতাস গ্যাসের এমডি ও পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যানের সঙ্গে কথা বলেছি, কিন্তু কেউ সদুত্তর দিতে পারেননি। কেন গ্যাস সরবরাহ বন্ধ ছিল বলতে পারেননি তারা। শিল্পের উৎপাদন নিশ্চিতে গ্যাস সরবরাহ স্বাভাবিক রাখার অনুরোধ জানান তিনি।