সোনারগাঁয়ে দ্বিতীয় দিনে মহাসড়ক অবরোধ, যানবাহন ভাংচুর

0

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: বকেয়া বেতন-ভাতার দাবিতে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার কাঁচপুরের ওপেক্স অ্যান্ড সিনহা গ্রুপের শ্রমিকেরা দ্বিতীয় দিনেও ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে যানবাহন ভাংচুর করেছে। এ ঘটনায় নারায়ণগঞ্জ শিল্প পুলিশ তাৎক্ষণিকভাবে রাস্তা হতে শ্রমিকদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

কাঁচপুর হাইওয়ে থানা সম্মূখে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পাশে বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) সকালে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় প্রায় ১৫ মিনিট পর্যন্ত যানবাহন চলাচল বন্ধ ছিল।

পুলিশ ও শ্রমিকদের ভাষ্যমতে, ওপেক্স অ্যান্ড সিনহা গ্রুপের শ্রমিকেরা তিন মাস ধরে বেতন-ভাতা পাচ্ছেন না। তিন মাসের বেতন-ভাতা বুধবার দুপুরে পরিশোধ করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল কারখানা কর্তৃপক্ষ। কারখানা কর্তৃপক্ষ প্রতিশ্রুতিমতো বেতন-ভাতা পরিশোধ না করায় বুধবার বিকেল সাড়ে চারটায় কাঁচপুর সেতুর পূর্ব প্রান্তে ঢাকা-চট্টগ্রাম ও ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের ওপর শ্রমিকেরা টায়ার জ্বেলে আগুন ধরিয়ে দেন।

কয়েকটি ভাগে বিভক্ত হয়ে তাঁরা দুটি মহাসড়ক অবরোধ করে রাখেন। দুটি মহাসড়ক অবরোধ করে রাখায় কাঁচপুর সেতুর দুই প্রান্তে ঢাকা-চট্টগ্রাম ও ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে ২০ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। শ্রমিকদের অবরোধ চলার সময় শ্রমিকদের সঙ্গে কথা বলে অবরোধ তুলে নিতে পুলিশ সমঝোতা করার চেষ্টা করে। সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় পুলিশকে লক্ষ্য করে বিক্ষুব্ধ শ্রমিকেরা ইটপাটকেল নিক্ষেপ করেন। এ সময় ৫০-৬০টি যানবাহন ভাঙচুর করা হয়। পরে পুলিশ ফাঁকা গুলি ও কাঁদানে গ্যাসের শেল নিক্ষেপ করে। আধা ঘণ্টা পুলিশের সঙ্গে শ্রমিকদের পাল্টাপাল্টি ধাওয়ার পর সন্ধ্যা সাতটায় শ্রমিকেরা মহাসড়ক ছেড়ে চলে যান। পরে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়।

এর ধারাবাহিকতায় বৃহস্পতিবারও কাঁচপুর হাইওয়ে থানা সম্মূখ ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পাশে অবস্থান করতে থাকে শ্রমিকরা। একপর্যায়ে কিছু শ্রমিক রাস্তা উপরে অবস্থান নেয় এবং কিছু যানবাহন ভাংচুর করে। তাৎক্ষণিকভাবে ইন্ডাস্ট্রিয়াল পুলিশ রাস্তা হতে শ্রমিকদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এতে সকাল ৯টা ২৫ মিনিট থেকে ৯টা ৪০ পর্যন্ত যানচলাচলে বিঘ্ন ঘটে। এই অনাকাঙ্খিত ঘটনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ইন্ডাস্ট্রিয়াল পুলিশের অফিসার ও ফোর্স এর সতর্কতা সহ গোয়েন্দা নজরদারী অব্যাহত আছে।

0