হাজীগঞ্জ-গোদনাইলবাসীর জন্য সু-খবর: পরিত্যক্ত রেলপথে হচ্ছে হাইওয়ে

0

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইভ নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জ-আদমজী রুটে পরিত্যক্ত হয়ে আছে রেলপথ। কেউ নির্মাণ করেছে বসতবাড়ি, কেউ বা আবার হাটবাজার কিংবা গাড়ির গ্যারেজ। আর এসব দখল টিকিয়ে রাখতে আশ্রয় নেওয়া হয়েছে ধর্মীয় সহানুভূতির। নির্মাণ করা হয়েছে মসজিদ ও মাজার। তবে এবার সব আয়োজন বৃথা হচ্ছে। ‌‌খুব শীঘ্রই পরিত্যক্ত ওই রেলপথটিতে হচ্ছে হাইওয়ে।

বুধবার (১ মে) ফতুল্লার নম মার্কে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে হাইওয়ে নির্মাণের কথাই জানিয়েছেন এলাকাটির সাংসদ শামীম ওসমান।

তার ভাষ্য মতে, ‘কয়েকদিন আগে একটি কাজে সফল হয়েছি। এই কাজটি সম্পূর্ণ হলে হাজীগঞ্জ, গোদনাইল এলাকার অনেক উপকার হবে। এগুলোর ব্যাকসাইডগুলো ব্যাপক গুরুত্ব পাবে। চাষাঢ়া থেকে ইপিজেড পর্যন্ত ৩০ ফিট প্রশস্ত রাস্তা হবে। অর্থাৎ একটি হাইওয়ে হবে। এটা ইতিমধ্যে পাশ হয়েছে।’

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ১৮৬২ সালে মালামাল আনা নেয়ার জন্য তৈরি করেন তৎকালীন বৃটিশ সরকার। এই রেললাইনটির তখন নরসিংদী পর্যন্ত পরিসীমা ছিল। তবে নারায়ণগঞ্জ শহরের চাষাড়া থেকে সিদ্ধিরগঞ্জ বিশ্বখাদ্য গুদাম (সাইল) পর্যন্ত প্রায় ১৫ দশমিক ৮ কিলোমিটারের উক্ত রেল সড়কটি ব্যবহারিত হতো মালামাল আনা নেয়ার জন্য। পরবর্তীতে পাকিস্তান সরকারের সময় ১৯৫১ সালে গড়ে উঠে আদমজি জুটমিল। দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে পাট পণ্য আনা নেয়া হতো এই সড়কটি দিয়েই। কিন্তু পাটকলটির পরিচালনা কমিটির দায়িত্বের অবহেলার কারণে ২০০২ সালের ৩০ জুন বন্ধ হয়ে যায়। তারপর থেকে চাষাড়া-সিদ্ধিরগঞ্জের বিশ্বখাদ্য গুদাম পর্যন্ত রেল সড়কটি পরিত্যক্ত অবস্থায় অরক্ষিত আছে।

এদিকে রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে বেদখল হয়ে গেছে রেলওয়ের শত কোটি টাকার সম্পত্তি। আদমজি পাট কল বন্ধের পাশাপাশি শহরের চাষাড়া থেকে সিদ্ধিরগঞ্জের বিশ্বখাদ্য গুদাম (সাইলো ) পর্যন্ত রেল চলাচলও বন্ধ হয়ে যাওয়ায় চুরি হয়ে গেছে কয়েক কোটি টাকার অরক্ষিত রেল লাইনের স্লিপার।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, রেল সড়কটির দুই পাশে সরকারি জমির উপর অবৈধভাবে গড়ে উঠেছে প্রায় ৩ হাজারেরও বেশি বাড়িঘর, অর্ধশতাধিক হাটবাজার, ৮টি সামাজিক সংগঠনের কার্যালয় এবং ১০টি মসজিদ ও মাজার। গড়ে তোলা হয়েছে টিনশেডের বসতঘর, বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের অফিস ইত্যাদি। রেলের জমিতে গড়ে উঠা সামাজিক সংগঠন হলো-খাঁনপুর রেললাইন মানব কল্যাণ সংস্থা, সূর্য তরুণ ক্রীড়া সংসদ, আল্ ছাফরাতুল মাইয়েত দাফন কমিটি ও মানব কল্যাণ সংঘ, আশার আলো কল্যাণ সংসদ, নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রসাদ নির্মাণ শ্রমিক ইউনিয়ন, বাইট মানব কল্যাণ বহুমুখী সমবায়, ভূঁইয়াপাড়া যুব সংঘ ও শ্রুতি বিদ্যা পাঠ।

হাজীগঞ্জ বাজারের নাম প্রকাশ না করা শর্তে একজন ব্যবসায়ী জানান, আমি এখানে ব্যবসা করি ২০১০ সাল থেকে। তখন থেকেই দেখে আসছি এখানের সকল দোকান ভাড়া তোলে স্থানীয় মাজার কমিটির লোকজন।

পাঠানটুলী এলাকার আজিজুর বলেন, দিন দিন রেল লাইনের সড়কটি পাশে ছোটই হচ্ছে। বাজার বসছে সরকারি রেল লাইনের উপর আর টাকা নিচ্ছে স্থানীয় প্রভাবশালী মহল।

0