১৭ বছর পর শুরু হলো মুজিব শতবর্ষ জেলা দাবা লীগ

লাইভ নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জে দীর্ঘ ১৭ বছর পর মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে জেলা দাবা লীগ ২০২১ উদ্বোধন করা হয়েছে। নারায়ণগঞ্জ জেলা ক্রীড়া সংস্থার আয়োজনে ,জেলা পুলিশ প্রশাসনের সহযোগিতায় এবং সেলিম স্মৃতি সংসদের পৃষ্ঠপোষকতায় এই মৌসুমের লীগ অনুষ্ঠিত হবে।


সোমবার (২৯ নভেম্বর) সকালে ফতুল্লায় সামসুজ্জোহা ক্রীড়া কমপ্লেক্সের হলরুমে নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) মোহাম্মদ জায়েদুল আলম মুজিব শতবর্ষ জেলা দাবা লীগ ২০২১’র উদ্বোধন করেন। এই খেলায় মোট ৮টি দল অংশ গ্রহন করেছেণ।

নারায়ণগঞ্জ জেলা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার(প্রশাসন) ও দাবা উপ-কমিটির সভাপতি মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিসিবির পরিচালক ও নারায়ণগঞ্জ জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক তানভীর আহমেদ টিটু ও বিশিষ্ট ক্রীড়ানুরাগী মো. শাহজাহান মাদবর।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসপি মোহাম্মদ জায়েদুল আলম বলেন, বাংলাদেশ দাবা ফেডারেশরে সভাপতির পদটি স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী নিজে আমাদের আইজিপি স্যার ডা. বেনজির আহমেদকে দিয়ে অলংকিত করেন। তার পর থেকেই আইজিপি স্যার এই দাবা নিয়ে সারা বাংলাদেশে একটি আন্দোলন গড়ে তোলার চেষ্টা করেছেন এবং এই দাবা বাংলাদেশে এগিয়ে যাওয়ার ফলেই বর্তমানে এশিয়া দাবা ফেডারেশনের সভাপতি আমাদের আইজিপি স্যার। আমি টিটু ভাইকে ধন্যাবাদ জানাই দীর্ঘ ১৭ বছর পর হলেও আমরা নারায়ণগঞ্জে আবার দাবালীগ শুরু করতে পেরেছি। এই সব কৃতিত্বই আমি মনে করি আপনাদের। আমরা শুধু আপনাদের সাথে থেকে কাজটা করতে পারি, কিন্তু মূল কাজটা আপনারাই করতে পারেন।

তিনি আরও বলেন, এক কালে হকি বলতেই নারায়ণগঞ্জকে বুঝানো হতো, দীর্ঘদিন আপনারা এটার নেতৃত্ব দিয়েছেন। ক্রিকেটের জাতীয় দলে আপনাদের প্লেয়ার ছিলো, ফুটবলে ছিলো। এখন আমরা চাই নারায়ণগঞ্জের সেই ঐতিহ্য আবার ফিরে আসুক, সোনালি ভবিষ্যতের দিকে যাতে এগিয়ে যেতে পারি, সেই দিকে আমাদের সকলের প্রচেষ্টা থাকবে।

বিসিবির পরিচালক ও নারায়ণগঞ্জ জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক তানভীর আহমেদ টিটু বলেন, আমরা ১৭ বছর পর শুরু করলেও আমরা এটা অন্তত শুরু করেছি। এটাই আমাদের সার্থকতা। এই ১৭ বছর যাতে আগামীতে ১৭ মাসও না হয়, আমরা সেই ব্যপারে সজাগ দৃষ্টি রাখবো। ইনশাল্লা আমরা প্রতি বছর এই লীগের আয়োজন করবো। আমরা দাবা উপ কমিটির সাথে কথা বলে এটা আরও কিভাবে বর্ধিত করা যায় বা কোন টুর্নামেন্টের আয়োজন করা যায় কিনা সেই ব্যপারে সজাগ দৃষ্টি রাখবো।

তিনি আরও বলেন, আমি গর্বের সাথে বলতে পারি নারায়ণগঞ্জ এমন একটা জেলা, যা বাংলাদেশের সবগুলো জেলার থেকে বেশী খেলাধুলার আয়োজন করা হয়। আর এটা বাংলাদেশের প্রত্যেকটি জেলার মানুষ জানে। এই কৃতিত্ব শুধু আমার না, যারা আয়োজন করে তারাও আছে। যারা বিভিন্ন ক্লাব থেকে দাবা, কাবাডি, ক্রিকেট-ফুটবল খেলা পরিচালনা করে, সেই কর্মকর্তাদের প্রতি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। আপনারা আছেন বলেই আমাদের নারায়ণগঞ্জ প্রশংসিত হচ্ছে। আমরা দাবা খেলার জন্য কিছু সংস্কারের মাধ্যমে একটি আলাদা রুম তৈরী করবো। যেখানে সারা বছর দাবা খেলার বিভিন্ন আয়োজন করা যায়।

এ সময় অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন, জেলা ক্রীড়া সংস্থার সহ-সভাপতি ফারুক বিন ইউসুফ পাপ্পু, যুগ্ম সম্পাদক খোরশেদ আলম নাসির ও মোস্তফা কাওছার, কার্যকরী সদস্য রোকসানা খবির, জাকির হোসেন শাহিন, মো. আসলাম, ফিরোজ মাহমুদ সামা, মাহবুবুল হক উজ্জল, এস.এম আরিফ মিহির, জাহাঙ্গীর আলম, আতাউর রহমান মিলন, গৌতম কুমার সাহা, সিরাজ উদ্দিন আহমেদ, দাবাড়– সংগঠক জাহাঙ্গীর ইসলাম, মোরসালিন আহমেদ, মোহাম্মদ শামীম প্রমুখ।

এদিকে, আজ খেলার প্রথম রাউন্ডের খেলায় চেস বিডি ডটকম ও নুরুল ইসলাম স্মৃতি পাঠাগার ৪ পয়েন্ট পেয়ে শীর্ষে। নারায়ণগঞ্জ চেস একাডেমী সাড়ে ৩ পয়েন্ট, ঈগল স্পোর্টিং ক্লাব ও বারেক সরদার স্মৃতি সংসদ ২পয়েন্ট প্রিতম-প্রিজম চেস ক্লাব হাফ পয়েন্ট এবং মানহা-সীমান্ত স্পোর্টিং ক্লাব ও লুসানা চেস ক্লাব কোন পয়েন্ট পায়নি।